স্বেচ্ছাসেবা‘তেও স্বজনপোষণ!

মন্ত্রীদেরই সাত খুন মাফ হয় । আনার প‍্যাটেল তো খোদ গুজরাটের মুখ‍্যমন্ত্রীর মেয়ে । অতএব একাধিক আইন ভাঙার অভিযোগ উঠলেও তাঁর স্বেচ্ছাসেবী সংগঠনের বিরুদ্ধে রা কাড়তে নারাজ স্বরাষ্ট্রমন্ত্রক । আনারের সংগঠন গ্রামশ্রী ট্রাস্ট তাই ধরাছোঁয়ার বাইরেই এখনও ।  আনন্দীবেন প‍্যাটেল নিজেই এই সংগঠনের প্রতিষ্ঠাতা । এখন দায়িত্বভার আনারের ওপর । এই সংস্থার বিরুদ্ধে ফরেন কন্ট্রিবিশন রেগুলেটরি অ‍্যাক্ট ও প্রিভেনশন অব মানি লন্ডারিং অ‍্যাক্ট লঙ্ঘন করার অভিযোগ উঠেছে । আয়-ব‍্যয়ের কোনও খতিয়ানও এই সংস্থা সরকারকে দেয়নি বলে অভিযোগ । অথচ একই আইনের যুক্তিতে সমাজকর্মী তিস্তা শিতলাবাদ এবং প্রাক্তন সলিসিটর জেনারেল ইন্দিরা জয়সিংয়ের বিরুদ্ধে তদন্ত চলছে । ২০১৫-র এপ্রিলে প্রায় ৯০০০ স্বেচ্ছাসেবী সংস্থার অনুমোদনও বাতিল করে দেয় কেন্দ্র । এই দ্বিচারিতা নিয়েই প্রশ্ন তুলেছেন আমেদাবাদের এক সমাজকর্মী রোশন শাহ । কিন্তু তারপরেও হিরণ্ময় নীরবতা নজির রেখেছে সরকার ।  সরকারি নেকনজরে থাকা সংস্থার ‘স্বেচ্ছাসেবা’ যে আইনের গণ্ডির বাইরে,তারই নমুনা  এই পক্ষপাতিত্ব । শত হলেও প্রধানমন্ত্রী নিজের রাজ‍্য গুজরাট এবং  কাছের লোক আনন্দীবেন প‍্যাটেলের নাম যেখানে যুক্ত,সেখানে আইন ভাঙলেই বা পেয়াদা কাকে পাকড়াবে?  কার ঘাড়ে মাথা কতগুলো?
বিস্তারিত জানতে পড়ুন THE WIRE