তোলাবাজির অভিযোগে তৃণমূল কাউন্সিলরের গ্রেফতারি ও আমার না পাওয়া মাইনে!!

0
8

তোলাবাজির অভিযোগে গ্রেফতার হলেও পুলিস নিজেদের হেফাজতে নিল না বিধাননগর পুরসভার তৃণমূল কাউন্সিলর অনিন্দ্য চট্টোপাধ্যায়কে। আদালত তাকে ১৪ দিনের জেল হেফাজতে পাঠানোর নির্দেশ দিয়েছে। মঙ্গলবার তৃণমূলের এই দাপুটে নেতাকে গ্রেফতার করে পুলিস। নতুন বাড়ি তৈরি বা বাড়ি সম্প্রসারণ করতে গেলেই ওই কাউন্সিলর টাকা চাইছিল বলে অভিযোগ। সল্টলেকের এক বাসিন্দার কাছ থেকে ১২ লক্ষ টাকা তোলা চায় অনিন্দ্য। তিনি বিষয়টি সাংসদ সুদীপ বন্দ্যোপাধ্যায়ের কাছে জানান। এর আগে একটি দৈনিকে প্রকাশিত খবর অনুযায়ী বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রীর ঘনিষ্ঠ এক ব্যক্তির কাছে সল্টলেকে বাড়ি সম্প্রসারণে তোলা চেয়েছিল অনিন্দ্য। বিষয়টি মুখ্যমন্ত্রীর কানেও যায়। আর তার পরই এই গ্রেফতার। একটু অপ্রাসঙ্গিক হবে কীনা জানি না, তবে বলার লোভ সামলাতে পারছি না।এই প্রতিবেদক তাঁর চাকরি জীবনের শুরুতে অনিন্দ্য চট্টোপাধ্যায়ের মালিকানাধীন বিধাননগরের একটি পাক্ষিককে কিছু দিন কাজ করেছিল। পাওনা বেতন আজ দিচ্ছি , কাল দিচ্ছি বলে কোনদিনই আর দেয়নি অনিন্দ্য।আমি অনিন্দ্যকে বুঝেছিলাম কয়েকদিন কাজ করেই , মুখ্যমন্ত্রীর বুঝতে সময় লাগল ৫ বছর! তবে অনিন্দ্য ব্যতিক্রম নয়, ওয়ার্ডে ওয়ার্ডে অধিকাংশ কাউন্সিলরদেরই এই হাল। কেউ প্রমোটারদের থেকে ঘুরিয়ে তোলাবাজি করে  আবার অনিন্দ্য, অনুপম মন্ডলদের মত কাউন্সিলররা বেপরোয়া।