দেবীপক্ষ ও নারীর সম্মান

কালীঘাট সংলগ্ন চেতলা এলাকায় একটি কালীপুজোর মণ্ডপে মহিলাদের প্রবেশ নিষিদ্ধ করা হয়েছে। উদ্যোক্তারা জানাচ্ছেন গত ৪০ বছর ধরে এই পুজোয় এই রীতি চলে আসছে। দেবীপুজো অথচ মহিলারাই ব্রাত্য,এ রাজ্যে ধর্ম বিশ্বাসী মানুষরা বলেন এখন দেবীপক্ষ চলছে,দেবীপক্ষে দেবীবরণ হয়,অনেকের মতে এ রাজ্যের মানুষ যে মহিলাদের সম্মান জানাতে পারেন তার প্রমাণ নাকি এই দেবীপুজোর মধ্য দিয়েই প্রকাশ পায়।পরিসংখ্যান বলছে দেবীপক্ষের মধ্যেই এ রাজ্যে সবচেয়ে বেশী মহিলা নিধনের ঘটনা ঘটেছে। গত একমাসে এ রাজ্যে ৩০ জন মহিলাকে হত্যা করা হয়েছে বলে অভিযোগ,এর মধ্যে ২০জন শ্বশুর বাড়ির অত্যাচারের শিকার,এছাড়া অ্যাসিড আক্রান্ত হয়ে ও প্রেমে না বলায় গাড়ি দিয়ে পিষে দেওয়া হয়েছে কয়েকজনকে।এই যেখানে বাস্তব পরিস্থিতি সেখানে দেবীপক্ষে ধর্মের উপাচার সাজিয়ে মহিলাদের সম্মান কতটা বাড়ে তা নিয়ে প্রশ্ন ওঠা কী অস্বাভাবিক? আসল কথা বোধহয় এটাই যে মহিলাদের সম্পর্কে সমাজের চিরাচরিত ভাবনার বদল না ঘটাতে পারলে,শুধু মাত্র ধর্মীয় আবেগ আর হুল্লোর মত্ততা দিয়ে মহিলাদের সম্মান রক্ষা করা যায় না।এ রাজ্যের  একের পর এক ঘটনা সেই সত্যটাই বলতে চাইছে বোধহয়।তবে এ সত্যকে গ্রহণ করার মতো সাবালকত্ব এ রাজ্যের কতজনের আছে তা নিয়ে সংশয় থাকছেই।

,