বাবা রামদেব এখন পতঞ্জলি সাম্রাজ্যের বাণিজ্যদেব

0
35

পতঞ্জলি আয়ুর্বেদ কি সত্যিই দেশ জুরে বিশাল বাণিজ্যের সাম্রাজ্য গড়ে তুলেছে?পরিসংখ্যান তেমনটাই বলছে, পতঞ্জলি ব্যবসার পরিমান এখন ৫০০০হাজার কোটি টাকা বর্তমান আর্থিক বছরে সেই ব্যবসা আর বাড়িয়ে ৭০০০হাজার কোটি টাকা করার লক্ষ্যমাত্রা রাখা হয়েছে।একজন যোগগুরু যার বিরুদ্ধে এক সময় খুনের অভিযোগ ছিল,যার জন্য পূর্বতন কংগ্রেস সরকার সিবিআই তদন্ত করিয়ে ছিল সেই লোকটি কীভাবে এক দশকের মধ্যে এই বিশাল পরিমাণ অর্থের ব্যবসা গড়ে তুললো তা নিয়ে প্রশ্ন উঠতে শুরু করেছে। টুথপেস্ট থেকে সাবান,আটা,তেল প্রসাধনের যাবতীয় সামগ্রী পাওয়া যাচ্ছে পতঞ্জলির স্টোরে,দেশের প্রায় প্রতিটি শহরে পতঞ্জির একাধিক দোকান বা স্টোর তৈরি হয়ে গেছে।বিজ্ঞাপনে পতঞ্জলির প্রোডাক্টের চাহিদা তৈরি করতে খরচ করা হচ্ছে কোটি কোটি টাকা।প্রশ্ন রামদেবের মতো একজন যোগগুরু এত বিশাল পরিমাণ অর্থের যোগান দিচ্ছেন কোথা থেকে,বিজ্ঞাপনে গেরুয়া বসন পরিহিত রামদেবের বাণী বারবার প্রচারিত হচ্ছে,বলা হচ্ছে প্রডাক্টগুলি খাঁটি ও নিরাপদ।বিশ্বাস আর বিশুদ্ধতা এই দুই শব্দের জাদুতে রামদেবের ব্যবসা রমরমিয়ে চলছে।অভিযোগ উঠতে শুরু করেছে যে বর্তমান কেন্দ্রীয় সরকারের সঙ্গে সখ্য থাকায় তার প্রডাক্টগুলির যথার্থ স্কুটিনি হয় না।আর প্রশ্ন কালো টাকা উদ্ধারের কেন্দ্রীয় সককারের এত ভাষণ বাজির সময় রামদেবের এই বিপুল অর্থের যোগান কোথা থেকে তা জানাটাও কি জরুরি নয়?নাকি রামদেবের পেছনে অন্য কেউ আছে যে বা যারা রামদেবকে ঢাল করে এই বিশাল বাজার নিজেদের দখলে রাখতে সচেষ্ট,গোটাটাই রহস্য।তবে সাদা চোখে যা ধরা পড়ছে তা হল,যোগগুরু বাবা রামদেব এখন পতঞ্জলি বাণিজ্য সাম্রাজ্যের দেব যার আর্থিক মুল্য হতে চলেছে ৭০০০হাজার কোটি টাকা।