শুধু পবন রুইয়া কেন,তার মদতদাতাদের ও শাস্তির দাবি উঠুক

0
6

জেসপ নিয়ে কর্মীদের সঙ্গে প্রতারনা করার দায় অবশেষে গ্রেপ্তার করা হল পবন রুইয়া কে।রাজ্য পুলিশ শনিবার দিল্লি থেকে পবনকে গ্রেপ্তার করে আনে।পবন রুইয়া দীর্ঘ দিন ধরেই নানা ভাবে তাঁর সংস্থার কর্মীদের সঙ্গে প্রতারনা করে গেছেন।এর আগে ডানলপ কারখানা খোলার নাম করেও তিনি এক ধরনের প্রতারনাই করেছেন। সংস্থা খোলার নামে ব্যঙ্ক থেকে লোন  নেওয়ার পর লোন শোধ না দেওয়ার কৌশল হিসেবেই তিনি তিনি সংস্থাকে পঙ্গু করে রাখার ছক কষেছেন বারবার।এ কাজে তিনি সরকারের সহায়তাও পেয়েছেন,ডানলপ খোলার নামে যে ঋণ তিনি নিয়েছিলেন আজও তা শোধ করেন নি,কর্মীদের পাওনাও মেটাননি,আগের বাম সরকারের আমলে করা পবন রুইয়ার এই প্রতারনার কথা বেমালুম ভুলে বর্তমান সরকারও তাকে জেসপ কারখানা খোলার বিষয়ে সহায়তা করেছে।প্রতিশ্রুতি মতো জেসপ কর্মীদের টাকা দিনের পর দিন আটকে রেখেও পার পেয়ে গেছেন পবন।গত তিন বছর যাবত অসহায় জেসপ কর্মীদের নানা অভিযোগ থাকা সত্বেও তাদের কথার গুরুত্বই দেয় নি সরকার।অথচ এরই মধ্যে জেসপ কারখানা থেকে দামি যন্ত্রপাতি বার করে নিয়ে গেছে পবন রুইয়া।জেসপের কর্মী সংগঠন সরকারের সঙ্গে কথা বলতে চেয়ে ব্যর্থ হয়েছে বারবার।কর্মীদের প্রতারণা করাটাকে অভ্যাসে পরিনত করে ফেলেছিলেন পবন রুইয়া।সরকারের নিষ্ক্রিয়তা,সরকারের সহায়তাই তাকে এই সাহস জুগিয়েছিল।এতদিন পর অবস্থা আয়ত্তের বাইরে চলে যাওয়ায় পবন কে গ্রেপ্তার করলেও,এ রাজ্যের অর্থম্ত্রী তথা শিল্পমন্ত্রী অমিত মিত্র যে অযৌক্তিক আদিখ্যেতা করেছিলেন পবন রুইয়াকে নিয়ে,সে কথা কোনদিনই ভুলতে পারবেননা জেসপের প্রতারিত কর্মীরা।তাই পবনের পাশাপাশি তার ই্ন্ধনদাতাদেরও শাস্তি না হলে এই ধরনের প্রতারনা চক্র চলতেই থাকবে।কর্মীদের বঞ্চনার ইতিহাসে কোন ছেদ পরবে না।