নগদ ১৩৮৬০ কোটি কালো টাকা ঘোষণা করে ‘ধৃত’ কেন?

আয়কর স্বেচ্ছা ঘোষণা প্রকল্পে সব থেকে বেশি কালো  কালো টাকা , ১৩৮৬০ কোটি কালো টাকা , ,ঘোষণাকারী জমি- বাড়ির দালাল মহেশ শাহ প্রায় ২ সপ্তাহ  বেপাত্তা থাকার পর নিজেই ধরা দিলেন পুলিসের কাছে। একটি বেসরকারি টিভি চ্যানেলের স্টুডিওতে এসে সাক্ষাত্কার দেওয়ার পর তাকে জেরার জন্য আয়কর দফতরের কর্মীরা ও পুলিস ধরে নিয়ে যান। গুজরাটের এই তথাকথিত ব্যবসায়ী ৩০ সেপ্টেম্বর বন্ধ হওয়া আয়কর ঘোষণার  স্বেচ্ছা প্রকল্পে এই বিপুল অঙ্ক ঘোষণা করে জানিয়েছিলেন পুরোটাই নাকি বিভিন্ন জায়গায় নগদে রয়েছে। প্রকল্পের নিয়ম অনুযায়ী ৩০ নভেম্বরের মধ্যে ঘোষিত কালো টাকার উপর ধার্য্য করের( ১৩৮৬০ কোটির ৪৫ শতাংশ=৬২৩৭ ) কোটি টাকা  ২৫ শতাংশ , অর্থাত্ ১৫৬০ কোটি টাকা শাহের জমা দেওয়ার কথা। আর ২৮ তারিখ থেকেই বেপাত্তা ।মিডিয়া রিপোর্ট অনুযায়ী এমন কিছু বড় মাপের রিয়েল এস্টেটের দালাল নন এই মহেশ শাহ। বরং একটা ফ্ল্যাটে থাকেন ও অটো করে যাতায়ত করতেন মহেশ শাহ। প্রশ্ন উঠছে তার কাছে ১৩৮৬০ কোটি নগদ এলো কোথা থেকে? তাহলে কি এই টাকা অন্য কারো। মিডিয়া রিপোর্ট অনুযায়ী প্রভাবশালী লোকজনদের সঙ্গ শাহের যোগাযোগ রয়েছে। তাহলে টাকা কি তাদের? প্রধানমন্ত্রীর নোট বাতিলের খবর আগেই প্রকাশিত হয়েছিল গুজরাটের এক সংবাদপত্রে। তাহলে কি তার সাথে এর যোগাযোগ রয়েছে?