ঋতব্রতকে বুকনি দেওয়া কেন?

সিপিএমের তরুণ সাংসদ ঋতব্রত বন্দ্যোপাধ্যায়কে বকে দিয়েছে দল। কারণ অস্পষ্ট।  দামি ঘড়ি ও পেন ব্যবহার করায় এক ব্যক্তি ফেসবুকে সেই নিয়ে ঋতব্রতকে প্রশ্ন করেন। এতেই চটে গিয়ে ওই ব্যক্তির চাকরি খাওয়ার জন্য বেসরকারি সংস্থাকে চিঠি লেখেন ঋতব্রত। মিডিয়ায় হইচই হওয়ায় দল তাকে তিরস্কার করে। শুধুই প্রশ্নকর্তা চাকরি খাওয়ার জন্য বকুনি নাকি দামি পেনও ঘড়ির জন্যও তিরস্কৃত তা মিডিয়া রিপোর্ট থেকে স্পষ্ট নয়। সিপিএম নেতাদের জমিদারি আচরণ বিচ্ছিন্ন নয়। বিচ্ছিন্ন নয় বিলাসবহুল জীবন। লক্ষ্মণ শেঠ থেকে রাজার হাট পুরসভার প্রাক্তন চেয়ারম্যান  তাপস চক্রবর্তী এরা কী পরিমাণ সম্পত্তির মালিক তা এলাকায় কানপাতালেই শোনা যায়। সিপিএম প্রাসাদোপম পার্টি অফিসগুলো সিপিএমের প্রাচুর্যের নির্দশন।  ফলে তরুণ প্রজন্মের সিপিএম নেতাদের যে দামি গ্যাজেটের উপর টান হবে তাতে অবাক হওয়ার কিছু নেই। অবাক হচ্ছি না ঋতব্রতর জমিদারি মেজাজ দেখেও।