শিশু পাচার চক্রের চন্দনার দাবি কি আদৌ বিস্ফোরক?

শিশুপাচারে মূল অভিযুক্ত চন্দনা চক্রবর্তী এবার জুহি চৌধুরীর পাশাপাশি রূপা গাঙ্গুলী ও বিজেপি  নেতা কৈলাস বিজয়বর্গীয় নাম জড়িয়ে দিলেন। পুলিসের সামনে মিডিয়াকে চন্দনা জানিয়েছেন পুরো বিষয়টির সঙ্গে জুহি ৩ বছর ধরে  জড়িত।জুহি   একবার এই বিষয়ে কৈলাস ও রপার সঙ্গেও কথা বলেন বলে দাবি চন্দনার। আর্থিক লাভের বিনিময় জুহি তাকে সাহায্য করতো বলে সিআইডিকে জানিয়েছেন চন্দনা। কিন্তু প্রশ্ন উঠছে গ্রেফতারের ১০ দিন পর মিডিয়ার সামনে এই সব কথা জানানোর মানে কী?  অন্য দিকে শ্রীনু নাইডু খুনের পরও বিজেপি নেতা দিলীপ ঘোষের নামে অভিযোগ করা হয়েছিল। কিন্তু তার পর সব চুপচাপ। অনেকেই বলছেন এটা একটা চিত্রনাট্যের অংশ। গোপন বোঝাপড়া! তাই কি?