বামেদের দ্বিচারিতা! ১০ হাজার অবৈধ নিয়োগের হাইকোর্টের রায়ের বিরুদ্ধে সুপ্রিম কোর্টে গিয়ে মুখ পুড়ল মাণিক সরকারের

0
9

ফের সামনে এলো  বামেদের দ্বিচারিতা । এরাজ্যে নারদা সারদা নিয়ে হাইকোর্টের রায়ের বিরুদ্ধে তৃণমূলের সরকার সুপ্রিম কোর্টে দ্বারস্থ হওয়ায় মমতার সমালোচনা করেছে বামেরা। তাদের অভিযোগ জনগণের করের টাকা অপচয় করছে রাজ্য সরকার। অথচ ত্রিপুরার বাম সরকার মমতার পথে হেঁটে অবৈধ নিয়োগে সংক্রান্ত হাইকোর্টের রায়ের বিরুদ্ধে সুপ্রিম কোর্টের দ্বারস্থ হয়েছিল। তবে সেখানেও মুখ পুড়েছে মাণিক ‘সরকারের”। ত্রিপুরায় সরকারি ও সরকারি অনুদানপ্রাপ্ত প্রায় ১০ হাজার স্কুল শিক্ষক নিয়োগকে অবৈধ, তাই বাতিল করতে হবে বলে জানিয়ে দিয়েছে সুপ্রিম কোর্ট। এর পর পরই মুখ্যমন্ত্রী মাণিক সরকারের ইস্তফার দাবিতে সরব বিরোধীরা। scroll.in এ প্রকাশিত রিপোর্ট অনুযায়ী  ২০১৩ সালের ডিসেম্বর মাসে রাজ্যের বাম সরকার ১০৩২৩জন শিক্ষককে বিভিন্ন বিদ্যালয় নিয়োগ করেন। কোন লিখিত পরীক্ষা ছাড়াই। শুধুমাত্র ইন্টারভিউয়ের মাধ্যমে। ১লক্ষের মত চাকরী প্রার্থী আবেদন করেছিলেন। যারা চাকরি পাননি তারা অনিয়মের অভিযোগ তুলে  ত্রিপুরা হাইকোর্টের দ্বারস্থ হন। তাদের অভিযোগ ছিল ncte এর গাইডলাইন মেনে নিয়োগ করা হয়নি। হাইকোর্ট স্পষ্টভাবে আবেদনকারীদের পক্ষে রায় দিয়ে জানিয়ে দেয় যে নিয়োগ অবৈধ কোন রকম নিয়ম মানা হয়নি। শুধুমাত্র খেয়ালখুশি ও ইচ্ছের ভিত্তিতেই নিয়োগ করা হয়েছে। হাইকোর্টের রায়ের বিরুদ্ধে সুপ্রিম কোর্টে যায় রাজ্য সরকার। গত ২৯ মার্চ সর্বোচ্চ আদালত হাইকোর্টের রায়কে বহাল রেখে জানিয়ে দিয়েছে ১০ হাজার শিক্ষক নিয়োগ অবৈধ তাকে বাতিল করতে হবে। ৩১ ডিসেম্বর পর্যন্ত এই ১০ হাজার শিক্ষককে কাজ করতে অনুমতি দেওয়ার পাশাপাশি ৩১ ডিসেম্বর ২০১৭ এর মধ্যে নতুন করে ১০ হাজার শিক্ষক নিয়োগের প্রক্রিয়া শেষ করতে রাজ্য সরকারকে নির্দেশ দিয়েছে  সুপ্রিম কোর্ট।