সাজানো মামলা -আগাম জামিন মঞ্জুর সমাজকর্মীদের

0
6

মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় যখন কেন্দ্রের বিজেপি সরকারের বিরুদ্ধে বিরোধী মত সহ্য না করতে পারার অভিযোগ আনছেন,যখন বিজেপির মেরুকরণের রাজনীতির বিরুদ্ধে রাজ্যের বিশিষ্টজনদের পথে নামার আহ্বান জানাচ্ছেন,তথন তাঁরই পুলিশ প্রশাসন রাজ্যের একাধিক গণআন্দোলনকারীদের বিরুদ্ধে মিথ্যে মামলা দিয়ে তাঁদের গারদে পোরার কৌশল চালিয়ে যাচ্ছে।পুলিশের এরকম মিথ্যে মামালায় গ্রেপ্তারির সম্ভবনা এড়াতে দিন কয়েক আগে দক্ষিণ চব্বিশ পরগনার জেলা জজের এজলাসে এ রাজ্যের একাধিক সমাজকর্মী আগাম জামিনের আবেদন করেন।এঁদের পক্ষের আইনজীবী বিজয়া চন্দ জজকে বলেন,না পছন্দের যে কোন আন্দোলনকে দমন করতে একের পর এক স্টিরিয়োটাইপ মামলা সাজানো হচ্ছে,এফআইআরের নথি দেখলেই বোঝা যায় যেন তেন প্রকারেণ গণআন্দোলনকে আটকাতেই এই ব্যবস্থা।১১ জানুয়ারি ভাঙড়ের কাশীপুর থানা এলাকায় বিক্ষোভ সমাবেশ হয়,কোন বড় অশান্তির ঘটনা ঘটে নি তা সত্ত্বেও ৯জনের বিরুদ্ধে এফআইআর করা হয়।কাশীপুর থানার এই তুঘলকি চালে অভিযুক্ত সমাজকর্মী থেকে শিক্ষাবিদ,এমনকি কয়েকজন শিশুও।যেখানেই গণ আন্দোলনের সম্ভাবনা সেখানেই আন্দোলনকারীদের দমন করতে সাজানো মামলা দায়ের করা হচ্ছে।সমাজকর্মী কৃষ্ণা বন্দ্যোপাধ্যায়,স্বপ্না বন্দ্যোপাধ্যায়,মানবাধিকার কর্মী অনিমেষ মজুমদার,রাংতা মুন্সি,জয়গোপাল দের আগাম জামিন মঞ্জুর করেন বিচারপতি।সমাজকর্মী অনুরাধা তলোয়ার,মানবাধিকার কর্মী  সুজাত ভদ্রের বিরুদ্ধেও এরকম ছটি মামলার আগাম জামিন মঞ্জুর করেন জেলা জজ শুভ্রদীপ মিত্র।সরকারী আইনজীবীকে কিছু বলতে না দিয়েই জজ জামিন দিয়ে দেওয়ায় অস্বস্তিতে পরেন সরকারী আইনজীবী।