পাশ করেও অনিশ্চত ভাঙড়ের ছেলে মেয়েদের উচ্চমাধ্যমিকে ভর্তি হওয়া

গত কয়েকমাস ধরে একটানা লড়াই,হাঙ্গামা,ভয়,তবু ওরা পড়া চালিয়ে গেছে।দাঁতে দাঁত চেপে কোনক্রমে পরীক্ষার প্রস্তুতি নিয়েছে।ফল খুব ভাল হবে না ওরা জানতো,তবে পাশ করাটাও ওদের কাছে রীতিমতো গর্বের।ওরা ভাঙড়ের ছেলে মেয়েরা,পাওয়ার গ্রিড বিরোধী আন্দোলনে ওদের পরিবার জড়িয়ে পড়ায় সরকারের চোখে ওরা অপরাধী।সরকারী প্রশাসন ও আরাবুলের অস্ত্রবাহিনী এখন ওদের চারপাশ থেকে ঘিরে ধরে আন্দোলন থেকে সরিয়ে আনতে মরিয়া চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে।তবু ভয়াবহ প্রতিকুলতা পেরিয়ে সদ্য মাধ্যমিক পাশ করার আনন্দের পরশ ওদের অনেকেরই চোখে মুখে লেগে।তারই প্রতিফলন উত্তর গাজীপুরের আলমগীর হোসেনের কথায়,পরীক্ষার আগে অনেকদিন বোমার ভয়ে গাছের ডালে গিয়ে বসে থাকতাম,একাধিক বার বাড়ি ছেড়ে লুকিয়ে অন্য জায়গায় গিয়ে পড়তে বসতাম।ভয় আর আর আতঙ্কের সেই স্মৃতি পেরিয়ে শনিবার যখন জানলাম পাশ করেছি তখন খুব আনন্দ হয়েছে,রেজাল্ট ভাল না হলেও পাশ করায় বাড়ির সবাই খুশি।আলমগীর খুশি হলেও পাশ করেও খুশি হতে পারছে না সাবিতুননাহার,কারণ খামারআইট গ্রামের সাবিতুননাহারের  বাবাকে সাবিতুনের পরীক্ষা চলাকালীনই পুলিশ গ্রেপ্তার  করে,এখনও সে জেলেই,তাই পাশ করেও অনিশ্চিত সাবিতুননাহারের আগামি লেখাপড়া।উত্তপ্ত ভাঙড় এলাকার মছিভাঙা,খামারআইট, উত্তর গাজীপুর,টোনা,ঢিবঢিবা,উড়িয়া পাড়া,শ্যামনগর গ্রাম থেকে এবার প্রায় দেড়শো ছেলে মেয়ে   মাধ্যমিক পরীক্ষা দিয়েছিল,সবাই পাশ করলেও রেজাল্ট কারোরই খুব ভাল হয় নি।ভাঙড়ের উত্তপ্ত পরিস্থিতিই এর জন্য দায়ি বলে মনে করেন,ভাঙড়ের জমি জীবিকা বাস্তুতন্ত্র ও পরিবেশ রক্ষা কমিটির যুগ্ম আহ্বায়ক মীর্জা হাসান তাঁর মতে,জীবন বাজি রেখে পরীক্ষা দিয়েছিল এখানকার ছেলে মেয়েরা,ওরা যে পাশ করেছে তাকেই কুর্নিশ করা উচিত।সদ্য মাধ্যমিক পাশ করে গাজীপুরের আয়েসা খাতুন জানতে চান,আরাবুলের সশস্ত্র বাহিনী আর পুলিশ আমাদের সবসময় ঘিরে রেখেছে স্বাধীন ভাবে চলা ফেরা করতে পারছি না কি ভাবে কলেজে ভর্তি হতে যাবো বুঝতে পারছি না।আয়েসার মায়ের প্রশ্ন যে সরকারকে আমরা জিতিয়ে এনেছি তারা আমাদের বন্দি করে রেখেছে কেন,মমতা বন্দোপাধ্যায় কি তাহলে আমাদের মুখ্যমন্ত্রী নন!সত্যিই তো ভাঙড়ে এই তীব্র প্রতিকুলতা পেরিয়ে যে সব ছেলে মেয়ে মাধ্যমিকের গন্ডী পেরিয়ে গেল,তাদের কোন শুভেচ্ছা কি জানিয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী বা শিক্ষামন্ত্রী,আমরা জানি না।তাই আয়েসা খাতুনদের মুখ্যমন্ত্রী কে তাও আমাদের জানা নেই।

,