রেলমন্ত্রীর ইস্তফার ইচ্ছেপ্রকাশ কি কৌশল মাত্র? রেলের রোগমুক্তির প্রয়াস, নাকি অন্যকিছু?

0
6

৪ দিনের মাথায় আবার একটা রেল দুর্ঘটনা। দুর্ঘটনার নৈতিক দায় নিয়ে প্রধানমন্ত্রীর কাছে হাজির রেলমন্ত্রী সুরেশ প্রভু। মোদি তাকে অপেক্ষা করতে বলেছেন। ইতিমধ্যেই রেলবোর্ডের চেয়ারম্যান পদত্যাগ করেছেন। উত্কল এক্সপ্রেস দুর্ঘটনার জেরে রেল বোর্ডের এক সদস্যের উপর শাস্তিমূলক ব্যবস্থা নেওয়ায় নাকি অখুশি হয়েছেন রেল বোর্ডের চেয়ারম্যান । বিষয়টা রেলমন্ত্রীর ইস্তফার ইচ্ছেপ্রকাশ বা আমলার ইস্তফা নয়।রেলের বেহালদশার জন্য গলদ কোথায় সেটা খুঁজে বের করা দরকার। কেন বুলেট ট্রেনের পিছনে লক্ষ কোটি টাকা বিনিয়োগ করা হচ্ছে অথচ রেলের পরিকাঠামোর জন্য সেরকম টাকা খরচ করা হচ্ছে না। কেন কয়েক লক্ষ শূন্যপদে কর্মী নিয়োগ করছে না রেল। আসলে পদত্যাগ বা ইস্তফার আড়ালে চেপে দেওয়া হচ্ছে রেলের বেহাল দশাকে। সেই সঙ্গে তলে তলে , ধাপে ধাপে করা হচ্ছে রেলের বেসরকারি করণ। রাষ্ট্রায়ত্ত রেল অচল, এই জনমত তৈরির এক চেষ্টা দীর্ঘদিন ধরেই চলছে। আর তাই দুর্ঘটনা হলে হয় তাকে ধামাচাপা দাও, নতুবা ইস্তফার কৌশল নাও। এর কোনটাই রেলকে লাইনে আনতে পারবে  কি?