পাহাড়ে ১২ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত বনধ প্রত্যাহার ইস্যুতে প্রকাশ্যে মোর্চার কোন্দল

১ সেপ্টেম্বর থেকে ১২ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত পাহাড়ে বনধ প্রত্যাহার করে নিল গোর্খা জনমুক্তি মোর্চার বিনয় তামাং  গোষ্ঠী। মোর্চা । HT এর রিপোর্ট  অনুযায়ী  ঘোষণার প্রায় সঙ্গে সঙ্গেই বনধ প্রত্যাহারের বিরোধিতা করেছেন বিমল গুরুং।    তাই  পাহাড়ে আবার অশান্তি মেঘ জমতে শুরু করেছে বলে মনে করছেন রাজনৈতিক পর্যবেক্ষকদের একাংশ। এবার মোর্চার অন্দরেই অশান্তি বাঁধার সম্ভাবনা তৈরি হয়েছে।নবান্নে বিনয় তামাঙদের বৈঠক করে যাওয়ার পর,যে ভাবে রাজ্য সরকারের কথা মতো পাহাড়ে বনধ তুলে স্বাভাবিক অবস্থা ফেরানোর জন্য বিনয় তামাঙরা উদ্যোগী হলেন তাতে তাদের আচরণকে পাহাড়ের মানুষের চাহিদার সঙ্গে প্রতারণা বলে দাবি করে বৃহস্পতিবার গোপন ডেরা থেকেই হুঙ্কার দিয়েছেন বিমল গুরুং,তিনি জানিয়েছেন পাহাড়ে যারা রাজ্য সরকারের উমেদারি করতে শুরু করছে তাদের অবিলম্বে পাহাড় থেকে বার করে দেওয়া হবে,পাহাড় এখন স্বাধীনতার লড়াইটাই করবে,বিশ্বাস ঘাতকদের বিরুদ্ধে পাহাড়িদের একজোট হওয়ার আহ্বান জানিয়ে বিমল গুরুং দাবি করেছেন,পাহাড়ের মানুষ স্বাধীনতার লড়াই লড়তে প্রস্তুত আছে,তা কয়েকদিনের মধ্যেই বোঝা যাবে।উল্টোদিকে বিনয় তামাঙের দাবি মানুষ শান্তি চায়,উন্নয়ন চায় তাই তারা মানুষের কথাই শুনবেন।নিজেকে মোর্চার প্রতিষ্ঠাতা সদস্য হিসেবে দাবি করে বিনয় তামাঙ জানিয়ে দিলেন তিনি মোর্চার সঙ্গেই আছেন,তাকে পাহাড়ছেড়ে পালাতে হয় নি তাই মনুষ তার কথাতেই লড়বেন।মোর্চা যে এখন আড়াআড়ি ভাবে ভাগ হয়ে গেছে তা পরিষ্কার,আর এই ভাঙনের ফলেই পাহাড়ে জমছে নতুন অশান্তির মেঘ।এখন দেখার বিমল গুরুঙের ভাগ্য সুভায ঘিসিংকেই অনুসরন করে কিনা!