স্বামীর সঙ্গে দেখা করার ‘মৌলিক’ অধিকার চাইছেন হাদিয়া

বাবা -মায়ের হেফাজত থেকে মুক্ত করে তামিলনাডুতে কলেজ হস্টেলে পড়ার জন্য পাঠিয়েছে সুপ্রিম কোর্ট। এতে মোটেই খুশি নয় বছর ২৫ এর তরুণী হাদিয়া। কলেজ হস্টেল তার কাছে আরেকটা জেলখানা হতে চলছে। বুধবার মিডিয়াকে জানিয়েছেন হাদিয়া। তিনি যাকে ভালবাসেন সেই স্বামীর সঙ্গে দেখা করতে দেওয়া হচ্ছে না।  দেশের সর্বোচ্চ আদালত সোমবার হাদিয়ার বিবাহ বৈধ কি না সেই বিষয় রায় না দিতে পারেনি। তবে তাঁ কে বাবা-মার হেফাজত থেকে মুক্ত করে তামিলনাড়ুতে হোমিওপ্যাথির পড়াশুনোর জন্য পাঠানোর নির্দেশ দেয়। এই সময় হাদিয়া কলেজের হস্টেলেই থাকবে বলে জানিয়েছে সর্বোচ্চ আদালত।প্রায় বছর খানেক আগে অখিলা অশোকন নিজের ইচ্ছেতে বিয়ে করেন মুসলীম যুবক সাফিন জাহানকে। এর পর থেকেই অখিলার বাবা অভিযোগ করতে থাকেন তার মেয়েকে মগজধোলাই করে ধর্মান্তিরত করা হয়েছে। তাকে নাকি সিরিয়াতে isis এর সন্ত্রাসের সঙ্গে যুক্ত করার ছক রয়েছে। বিষয়টি গড়ায় আদালতে। কেরল হাইকোর্ট হাদিয়ার বিবাহকে অবৈধ  ঘোষণা করে তাকে তার বাবা মায়ের সঙ্গে থাকতে নির্দেশ দেয়। অন্যদিকে হাদিয়ার বিয়ের বিষয় জঙ্গি যোগ রয়েছে কিনা তা খতিয়ে দেখতে আসরে নামে NIA। যদিও পুরো সময়টা জুরে হাদিয়া দাবি করে আসছিল যে তার স্বামীর সঙ্গেই থাকতে চায়। তার বাবা তাকে মারধর করেছে, মৃত্যুর আশঙ্কা প্রকাশ করে হাদিয়া। এর পর বিষয়টি সুপ্রিম কোর্টে গড়ায়। তবে এদিনও দেশের সর্বোচ্চ আদালত হাদিয়ার বিয়ের বিষয় কোন সিদ্ধান্ত জানাতে পারেনি। অন্যদিকে মজার বিষয় সিপিএম শাসিত কেরলে এই রকম একটি ঘটনাতেও বামেরা তেমন একটা মুখর নয়।