রাজ্য পুলিশের ডিজিকে সিবিআইয়ের তলব,রাজ্যের ভাবমূর্তির পক্ষে ক্ষতিকর!

রাজ্যপুলিশের ডিজিকে সিবিআই জেরা করতে চেয়ে নোটিশ পাঠিয়েছে।এই নোটিশে বলা হয়েছে সারদা ও রোজভ্যালি নামক চিঠফান্ডের নানা তথ্য ও কাগজ লোপাট বিষয়ে তাঁরা ডিজির কাছে জানতে চায়।বুধবার সিবিআইয়ের তরফে এই নোটিশ দিয়ে আর বলা হয়েছে যে এর আগেও রাজ্য পুলিশের ডিজি সুরোজিত কর পুরকায়স্থকে জেরা করতে চেয়ে বার্তা দিয়েছিল কিন্তু তাতে সারা না দেওয়ায় এবার সরাসরি নোটিশ পাঠানো হল।সিবিআই অফিসাররা জানিয়েছেন এবারই শেষ বারের মতো ডিজিকে ডাকা হল হাজির না হলে তাঁর বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়া হবে।রাজ্য পুলিশের প্রধানকে এভাবে সিবিআই জেরার জন্য নোটিশ দিচ্ছে এটা রাজ্যের ভাবমূর্তির দিক থেকে খুবই ক্ষতিকর।প্রসঙ্গত এর আগে কলকাতার পুলিশ কমিশনারকেও অন্য একটি বিষয়ে জেরা করতে চেয়ে কেন্দ্রীয় গোয়েন্দা সংস্থার আধিকারীকরা বার্তা দিয়েছিলেন।এমনকি সারদার মূল্যবান নথি নষ্ট করার অভিযোগও রয়েছে বর্তমান কলকাতা পুলিশ কমিশনারের বিরুদ্ধে,তাঁরও সিবিআইয়ের জেরার মুখে পরার সম্ভাবনা রয়েছে।এই সব ঘটনা রাজ্যের পুলিশ প্রশাসনের নিরপেক্ষ ভাবমূর্তিতে যথেষ্ট ধাক্কা দেয়।পুলিশ যদি ক্ষমতাসীন রাজনৈতিক দলের স্বার্থ রক্ষার তল্পিবাহক হয়ে ওঠে তবে প্রশাসনের প্রতি মানুষের আস্থা টলে যেতে বাধ্য।এর আগে নারদা কান্ডে এ রাজ্যের মানুষ দেখেছেন ক্ষমতাসীন রাজনৈতিক দলের নেতার হয়ে এক আইপিএস অফিসার ঘুষের টাকা নিচ্ছেন।এ রাজ্যে গত বিধানসভা নির্বাচনের সময় কলকাতার পুলিশ কমিশনারকে ক্ষমতাসীন দলের প্রতি অনুগত হওয়ার দায়ে দায়িত্ব থেকে সরিয়ে দিয়েছিল এ দেশের নির্বাচন কমিশন।তাই এ রাজ্যের উচ্চপদের পুলিশ আধিকারীকরা যে তাদের নিরপেক্ষতা রক্ষায় ব্যর্থ হচ্ছেন তাতে সন্দেহ কারার অবকাশ কম আছে।পুলিশের কাজ সমাজের দুর্নীতিকে প্রতিহত করা বদলে তারাই যদি নানা দুর্নীতির মদতদাতা হয়ে ওঠেন তবে তা বড় ভয়ের কথা।এ রাজ্যের পুলিশ আধিকারীকরা সারদা রোজভ্যালিতে জড়িত প্রভাবশালীদের আড়ল করার চেষ্টা করেছিলেন কিনা জানা না গেেলেও তাঁদের বিরুদ্ধে এরকম করার সম্ভাবনা আছে বুঝে কেন্দ্রীয় গোয়েন্দাসংস্থা তাদের জেরা করতে ডাকছে তাও রাজ্যের ভাবমূর্তির পক্ষে খুবই ক্ষতিকর বলেই মনে হয়।

,