দপ্তর বন্টন নিয়ে ক্ষোভের জেরে গুজরাতে চাপে বিজেপি

গুজরাতের জয় কে অসাধারণ ও মহান বলে আখ্যা দিয়ে আবেগবিহ্বল বক্তৃতা দিয়েছিলেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী,তাঁর দলের সাংসদদের কাছে সেই বক্তব্যে আবেগের আতিশয্যে তাঁর চোখে জল এসে গেছিল,কিন্তু গুজরাতে সরকার তৈরির কয়েকদিনের মধ্যেই প্রধানমন্ত্রী টের পাচ্ছেন আবেগ নয় গুজরাতে তাঁদের ক্ষমতা ধরে রাখতে হলে কঠোর বাস্তববাদী হতে হবে,ক্ষমতাকেন্দ্রীক রাজনীতির হিসেব নিকেশ দিয়েই সমস্যা মেটাতে হবে।গুজরাতে দপ্তর বন্টন নিয়ে বিজেপির অন্তর্কলহ সামনে চলে এসেছে।সেখানকার বিজেপি নেতা নিতিন পটেল একসঙ্গে একাধিক দপ্তরের মন্ত্রীত্বের দাবি তুলেছেন,তা না হলে পদত্যাগের হুমকিও দিয়ে রেখেছেন।বিজেপির রক্তচাপ বাড়িয়ে হার্দিক প্যাটেল নিতিনকে আমন্ত্রন জানিয়েছেন দশজন বিধায়ককে নিয়ে তিনি বিজেপি ছাড়লে কংগ্রেসের সঙ্গে কথা বলে তিনি নিতিনকে তাঁর উপযুক্ত দপ্তর দেবার ব্যবস্থা করতে পারেন।দশজন বিধায়ক দল ছাড়লেই গুজরাত বিজেপির হাতছাড়া হয়ে যাবে,সেটা বুঝতে পেরে অমিত শাহ তাড়াতাড়ি গুজরাতে গিয়ে সমস্যা সমাধানের প্রয়াস শুরু করতে রওনা দিয়ে দিয়েছেন।রাজমৈতিক পর্যবেক্ষকদের মতে আপাতাত অবস্থা সামাল দিলেও গুজরাতের কাঁটা বিজেপিকে ভোগাবে।যেভাবে খোদ গুজরাতে বিজেপির অন্তর্কলহ সামনে চলে এল,যেভাবে দলের বিধায়ক তাঁর অসন্তোষ প্রকাশ্যে নিয়ে এলেন সেটা মোদী অমিত শাহের বজ্রকঠিন ক্ষমতা কেন্দ্রীভূত করার সময়কালে নজিরবিহীন।গুজরাতের কোন্দোল বিজেপির কাছে নিঃসন্দেহে অশনিসংকেত বলেই মনে করছেন রাজনৈতিক পর্যবেক্ষকদের একাংশ।

,