বিজেপির যুবমোর্চার মিছিল ঘিরে রণক্ষেত্র সেন্ট্রাল অ্যাভিনিউ

বিজেপির যুব মোর্চাকে কলকাতা হাইকোর্ট শুক্রবার বাইক মিছিল করার অনুমতি দিয়েছিল কিন্তু শুক্রবার বিজেপির সদর দপ্তর থেকে মিছিল বের হবার পরেই সেন্ট্রালের মুখে তা আক্রান্ত হয়,বলে অভিযোগ,তৃণমূলের দুষ্কৃতীরা বিজেপির যুব মোর্চার কর্মীদের মারধোর করে বলে অভিযোগ করে দিলীপ ঘোষ ও মুকুল রায়রা।বাইকও ভাঙচূর করা হয়।রীতিমত ধুন্ধুমার বেধেঁ যায় বলে জানায় প্রত্যক্ষদর্শীরা।আদালতের অবজার্ভারের গাড়িতেও আক্রমণ করা হয়।বিজেপির রাজ্য নেতারা অভিযোগ করেন যেখানে আদালত নির্দেশ দিয়েছে সেখানে শাসক দলের গুন্ডারা তা না মেনে মিছিল বাতিল করতে বাধ্য করল এথেকেই বোঝা যায় এ রাজ্যে আইনের শাসন নেই।গোটা রাজ্যে গণতম্ত্র যে একেবারে ভেঙে পড়েছে তা পরিষ্কার।এ দিন শাসক দলের গুন্ডারা মিছেলে আক্রমণ করলেও পুলিশ প্রশাসন যে দর্শকের ভূমিকা পালন করেন সে অভিযোগ করেছেন কলকাতা হাইকোর্টের নিযুক্ত অবজার্ভারও, তাঁর প্রতিক্রিয়া বার বার বলা হয়েছিল আমি কোন রাজনৈতিক দলের লোক নই,তা সত্ত্বেও আমার গাড়ি আক্রমণের থেকে রাহাই পায় নি,এটা খুবই দুঃর্ভাগ্যের বিষয়।গোটা বিষয়টা তিনি আদালতকে জানাবেন বলে জানান এই অবজার্ভার।তবে শুক্রবার বিজেপির যুব মোর্চার এই মছিল ভন্ডুলের তান্ডবে রণক্ষেত্রের চেহারা নেয় গোটা সেন্ট্রাল এ্যভিনিউ,তাতে আতঙ্কিত হয়ে পড়েন সাধারণ পথচারিরা।এলাকায় যানচলাচল বন্ধ থাকে বেশ কিছু সময়,নকাল হন সাধারণ মানুষ তা নিয়ে অবশ্য কোন উদ্বেগ দেখায় নি কোন রাজনৈতিক দলই।বিজেপিও যে এ রাজ্যে প্রশাসনের সাহায্য ছাড়া সংগঠনের জোরে কোন কর্মসূচি কার্যকর করার ক্ষমতা অর্জন করতে পারে নি আবার তা প্রমাণিত হল।