কাঠগড়ায় নার্সিংহোম তবে সমস্যার হেতু সরকারের স্বাস্থ্যপরিকাঠামো তৈরির ব্যর্থতায়

বুধবার আবারও এ রাজ্যে নামী তিন তিনটি বেসরকারি নার্সিংহোমের বিরুদ্ধে সাধারণ মানুষের রোশ দেখা গেল।এক শিশু মৃত্যু ও প্রবীণ এক ব্যক্তির মৃত্যুতে আবারও হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের গাফিলতির অভিযোগে উত্তাল হোল রোগীর পরিবারের লোকজন।ডাক্তারদের নিরাপত্তা নিয়ে আবারও প্রশ্ন উঠতে শুরু করলো।আর এই সূত্র ধরে আবারও যে বিষয়টা সামনে চলে এল তা হল এ রাজ্যে সরকারি স্বাস্থ্য পরিষেবা কেন সেই স্তরে নিয়ে যাওয়া সম্ভব হল না যাতে সাধারণ মানুষ সরকারি হাসপাতালে এসব ক্ষেত্রে রোগীকে নিয়ে যেতে ভরসা পায়।অনেক কথা ও প্রচার করা হচ্ছে সরকারের পক্ষ থেকে স্পেশাল,সুপার স্পেশাল হাসপাতাল তৈরি হচ্ছে বলে জানানো হচ্ছে,কিন্তু সেখানে কোন পরিকাঠামো আদৌ কী তৈরি হয়েছে,কয়েকটা বিল্ডিং করে রঙ করে দিলেই হাসপাতাল তৈরি হয়ে যায় না দরকার ডাক্তার,যন্ত্র,ও আধুনিক পরিকাঠামো তা অধিকাংশ জায়গাতেই নেই,তা বলাই বাহুল্য।সাধারণ মানুষকে তাই বাধ্য হয়ে বেসরকারি হাসপাতালে যেতে হয়,নানা সমস্যা ও আর্থিক চাপ মেনে নিয়েও।আসলে বোধহয় স্বাস্থ্য নিয়ে যে বিভ্রন্তি তৈরি হয়েছে তার পেছনে রয়েছে সরকারের যথার্থ স্বাস্থ্য পরিষেবা নিয়ে ভাবনার গভীরতার অভাব।স্বাস্থ্য পরিষেবাকে পন্যমুখি ভাবনা থেকে মুক্তি দিতে সরকারকেই উদ্যোগী হতে হবে,সাধারণ মানুষকেও এ বিষয় আর সচেতন হতে হবে,শুধু ডাক্তারদের বিরুদ্ধে ঘৃণা ছড়িয়ে সমস্যার সমাধান হবে না,সরকারকে বাধ্য করতে হবে মানুষের স্বাস্থ্য পরিষেবাকে পন্য করে তোলার বিরুদ্ধে সর্বাত্মক প্রয়াস নিতে।