ধারাবাহিক নিগ্রহের প্রতিবাদে ইস্তফায় ইচ্ছুক সরকারি চিকিত্সকদের একাংশ?

বার বার সরকারের দৃষ্টি আকর্ষণের চেষ্টা হয়েছে,বার বার ব্যবস্থা নেওয়ার কথা বলা হয়েছে কিন্ত কোন সুরাহা মেলেনি।গত এক বছরে রাজ্যে সরকারি ও বেসরকারি মিলিয়ে মোট ৮৫ জন কর্মরত চিকিত্সক  বেদম মার খেয়েছেন। চিকিত্সকদের কয়েকটি  সংগঠন একসঙ্গে বসে এই নির্দিষ্ট তথ্য সংগ্রহ করেছে। এই তথ্যে দেখা যাচ্ছে ডাক্তারদের নিরাপত্তা ও সুষ্ঠু কাজের পরিস্থিতি রাজ্যের কোথাও নেই। ক্রমাগত আক্রমণ ও হামলায় চিকিত্সকরা আতঙ্কিত,ক্ষুদ্ধ,বীতশ্রদ্ধ,এই অবস্থায় তারা কড়া পদক্ষেপ নেওয়ার সিদ্ধান্তই নিতে চলেছেন। চিকিত্সকদের সংগঠন ওয়েস্টবেঙ্গল ডক্টর্স ফোরাম তাদের নিজস্ব ফেসবুক পেজে এই পরিস্থিতির প্রতিবাদে ইতিমধ্যেই যে চিকিত্সকেরা ইস্তফা দেবার ইচ্ছে প্রকাশ করেছেন তাঁদের একটা তালিকা প্রকাশ করে দিয়েছে। তাতে ১৭ জন চিকিত্সকের নাম আছে। সরকারি চিকিত্সকেদের একাংশ গণ ইস্তফা দেওয়ার পথে  যেতে পারেন বলে জল্পনা শুরু হয়েছিল সরকারি চিকিত্সকদের মহলে। ওয়েস্টবেঙ্গল ডক্টর্স ফোরামের সভাপতি রেজাউল করিম জানিয়েছেন,তাঁরা সরকারকে বিষয়টি নিয়ে ভাবার জন্য আরো সময় দিচ্ছেন। শনিবার ফোরামের বৈঠকে সিদ্ধান্ত হয়েছে এখনই গণ ইস্তফার পথে হাঁটছেন না তারা।