ধনঞ্জয়ের ফাঁসি কি হেতাল পারেখের ‘অনার কিলিংয়ের’ এর জেরেই? বিতর্ক উস্কে গবেষণামূলক বই

  হেতাল পারেখকে ধর্ষণ করে খুনের অপরাধে ফাঁসি দেওয়া হয়েছিল ধনঞ্জয় চ্যাটার্জী নামে এক নিরাপত্তারক্ষীকে। দিনটা ছিল ২০০৪ সালের ১৪ অগস্ট । সেই সময় তাঁর ফাঁসির পক্ষে সরব হয়েছিল মিডিয়া থেকে তত্কালীন মুখ্যমন্ত্রীর জায়া পর্যন্ত। রাস্তায় ফাঁসির পক্ষে পথে নেমেছিলেন একদল মানুষ। গুটি কয়েক মানুষ এই ফাঁসির বিরোধিতাও করেছিলেন। এবার সেই ফাঁসি নিয়ে বিতর্ককে ফের উস্কে দিল  আদালত- মিডিয়া- সমাজ  এবং ধনঞ্জয়ের ফাঁসি বইটি। ইন্ডিয়ান স্ট্যাটিসটিক্যাল ইনস্টিটিউটের দুই অধ্যাপক ও এক ইঞ্জিনিয়ারের দীর্ঘদিনের গবেষণার ফসল এই বই। এই বইয়ের লেখক দেবাশিস সেনগুপ্ত. প্রবাল চৌধুরী ও পরমেশ গোস্বামীদের মতে ধনঞ্জয়কে সাজান প্রমাণের মাধ্যমে খুন করা হয়েছে। হয়তো ব আড়াল করা হয়েছে হেতালরের মা কে। গবেষণা ও ঘটনার পরম্পরা বিশ্লেষণ করে লেখকেরা এই সিদ্ধান্তে পৌঁছেছেন যে হেতালকে ‘অনার কিলিংয়ের’ জন্য তার মা নিজেই খুন করে থাকতে পারেন।  যারা এই অপরাধ করে থাকতে পারতেন বলে ঘটনা পরম্পরায় দেখা যাচ্ছে তাঁদের ছাড় দিয়েছে পুলিস। পুলিসি তদন্ত আগাগোড়ায় হয় গলদে ভরা নয়তো সাজান। তাই পুনরায় নিরপেক্ষ তদন্তের দাবি তুলেছেন তাঁরা। তবে লেখকেরা সংশয়ও প্রকাশ করেছেন তা আমাদের দেশের আইনে আদৌ সম্ভব কি না!
 প্রথম প্রকাশ ৫ সেপ্টেম্বর ,২০১৬
©