শিশু ধর্ষকদের ফাঁসি সাজার অর্ডিন্যান্সে কি সত্যি কমাবে ধর্ষণের ঘটনা? আজও বিতর্কে ধনঞ্জয়ের ফাঁসি

কাটুয়া, উনাও সহ দেশের নানা প্রান্তে একাধিক ধর্ষণের ঘটনার জেরে দেশজুড়ে প্রতিবাদ উঠেছে। জনগণের একটা অংশ দাবি তুলেছিল শিশু ধর্ষণকারীর সাজা মৃত্যুদণ্ড দেওয়ার। আর তাতেই শিলমোহর দিল কেন্দ্রীয় মন্ত্রিসভা। এক অর্ডিন্যান্স জারি করে কেন্দ্রীয় সরকারের ১২ বছরের কম বয়সের শিশুদের ধর্ষকদের সাজা ফাঁসি দেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে। কিন্তু প্রশ্ন উঠছে সত্যি কি ফাঁসির সাজা ধর্ষণের মত ঘটনাকে কমাতে সক্ষম?  যেখানে প্রভাবশালী বা নেতাদের বিরুদ্ধে ওঠা ধর্ষণের অভিযোগ পুলিস নিতে রাজি হয় নাসেখানে ফাঁসি কি আদৌ শিশু ধর্ষণ কমাতে পারবে। অন্যদিকে মানবাধিকার সংগঠনগুলির মতে ফাঁসি কখনও ধর্ষণের ঘটনা কমাবে না, পক্ষান্তরে  ক্ষমতাবানরা  থানায় ধর্ষণের রিপোর্ট যাতে না হয় তার ব্যবস্থা নেবে। যেমনটা উনাওয়ের ক্ষেত্রে বিজেপি বিধায়ক করেছেন। তাই  শুধু  নয় ফাঁসির সাজা চট করে এক গরীবকে দেওয়া সহজ হবে, ধনীদের  নয়। এই প্রসঙ্গে আমাদের মনে পড়ে যাচ্ছে কলকাতায় হেতেল পারেখ ধর্ষণের ঘটনা  ফাঁসির সাজা হয় আবাসনের রক্ষী ধনঞ্জয় চট্টোপাধ্যায়ের। সেই ফাঁসির সিদ্ধান্ত নিয়ে প্রশ্ন তুলেছেন অনেকে। ২০১৬ সালে  কয়েকজন অধ্যাপক তাদের লেখা বই ‘আদালত মিডিয়া সমাজ এবং ধনঞ্জয়ের ফাঁসি’ এ ফাঁসির আদেশের পুনরায় তদন্তের দাবি তুলেছেন ।