ভাঙড়ের জমিকমিটির প্রার্থীর দুই ছেলেকে অপহরণ করে খুনের হুমকি, অভিযোগ আরাবুলদের বিরুদ্ধে

আরাবুল বাহিনী তাঁদের মনোনয়োনে বাধাঁ দিচ্ছে এই অভিযোগ নিয়ে আদালতের দ্বারস্থ হয়েছিলেন,ভঙড়ের জমি আন্দোলনকারীরা।পঞ্চায়েত ভোটে অংশ নিতে চেয়ে তারা বার বার আক্রান্ত হয়েছেন শাসক দলের গুন্ডা বাহিনীর দ্বারা,কলকাতা হাইকোর্ট ভাঙড়ের আন্দোলোনকারীদের এই অভিযোগের সত্যতাকে মান্যতা দিয়ে রাজ্য নির্বাচন কমিশনকে নির্দেশ দেয় যে কোন ভাবে ভাঙড়ের প্রার্থীদের মনোনয়োন নিতে হবে,শেষ পর্ষন্ত অনেক বাধাঁ বিপত্তি অতিক্রম করে জমি কমিটির ৯জন তাদের মনোনয়োন জমা দিতে সক্ষম হয়,তাও অন লাইনে।কোর্টের নির্দেশে সেই মনোনয়োন গ্রাহ্য হয়।তবে অভিযোগ এখন মনোনয়োন তুলে নিতে চাপ দিতে জুলুমবাজি শুরু করেছে আরাবুল বাহিনী।শুক্রবারই জমি কমিটির প্রার্থী ফতেমাবিবির দুই ছেলেকে তুলে নিয়ে গিয়ে আরাবুল ও তার দুষ্কৃতী বাহিনী আটকে রেখেছে,সেখান থেকে তাদের দিয়ে ফোন করিয়ে ফতেমাবিবি ও তাঁর স্বামি জামিল মোল্লাকে মনোনয়োন তুলে নিতে বলা হয়,না হলে ছেলেদের খুনের হুমকি দেওয়া হয়।ফোনে আরাবুলের গলা শোনা যায়,আরাবুল শান্ত গলায় জামিল মোল্লাকে বলে সে যেন আরাবুলের বাড়িতে গিয়ে দেখা করে তার স্ত্রী ফতেমাবিবির মনোনয়োন তুলে নিয়ে তাঁর দুই ছেলেকে ছাড়িয়ে আনে।তা না হলে শতিনেক ছেলে যে তাঁর ছেলেদের ক্ষতি করে দেবে তাও বলে আরাবুল।ফতেমাবিবি মনোনয়োন তুলে নিলে আরাবুলের প্রতিশ্রুতি তাদের ঘর বেঁধে দেওয়া হবে,তাঁদের নিরাপত্তার জন্য তাঁদের বাড়িতে পুলিশ পিকেট বসান হবে।এই ফোনালাপের বিষয়টা জানাজানি হতেই জমি কমিটির নেতারা পুলিশকে জানায়,তবে পুলিশ কোন ব্যবস্থা নিচ্ছে না বলে অভিযোগ।ফতেমাবিবি নিজেও প্রশাসনের কাছে লিখিত অভিযোগ দায়ের করেছেন,তবে পুলিশের নিষ্ক্রিয়তা নিয়ে আশঙ্কা প্রকাশ করেছেন সামজকর্মী থেকে মানবাধিকার আন্দোলনের কর্মীরা। এ রাজ্যে গণতন্ত্রের চেহারাটা যে কী ভয়াবহ তা বোধহয় এই ঘটনা থেকেই বোঝা যায়।