আনন্দবাজারের ‘অস্থায়ী’ ছাঁটাই কর্মীদের ২৭ দিনের বিক্ষোভের পরো হেলদোল নেই কারো

0
27

২৭ দিন ধরে আনন্দবাজার অফিসের বাইরে ঠায় বসে অবস্থান বিক্ষোভ করে চলেছেন,আনন্দবাজার  থেকে ছাঁটাই হওয়া ৫-১৪ বছর ধরে কাজ করা অস্থায়ী মেশিন কর্মীরা।একমাত্র সাতদিন.ইনে প্রকাশিত সেই খবরে আমরা জানিয়েছিলাম,কীভাবে চুক্তি ভিত্তিক কর্মী হওয়ার অজুহাত দেখিয়ে,কোনরকম দায় না নিয়ে ১৩-১৪ বছর ধরে কাজ করা বাঁকুড়া বড়জোড়া ইউনিটের ৩৪ জন মেশিন কর্মীদের বসিয়ে দিয়েছে আনন্দবাজার কর্তৃপক্ষ।তারপর থেকে কলকাতায় আনন্দবাজার অফিসের সামনেই সেই সব কর্মীরা লাগাতার অবস্থান বিক্ষোভ করে চলেছেন।তবে তা নিয়ে কোন হেলদোল নেই আনন্দবাজার কর্তৃপক্ষের।আন্দোলনে নামা কর্মীরা রাজ্য সরকারের শ্রম দপ্তরকে বিষয়টি জানিয়েছেন,কিন্তু তাতেও কোন সুরাহা মিলছে না বলে জানাচ্ছেন ছাঁটাই কর্মীরা।এ বিষয়ে সাতদিন.ইনের পক্ষ থেকে আমরা শ্রমমন্ত্রী শ্রী মলয় ঘটকের সঙ্গে কথা বলি।তিনি জানিয়েছেন বিষয়টি নিয়ে তাঁরা আনন্দবাজার কর্তৃপক্ষের সঙ্গে কথা বলেছেন,তাঁরা জানিয়েদিয়েছেন যে অস্থায়ী চুক্তিভিত্তিক কর্মীদের দায় তাঁরা নেবেন না।এ বিষয়ে সরকারের যে খুব বেশী কিছু করার নেই তাও জানান রাজ্যের শ্রমমন্ত্রী।আন্দোলনরত কর্মীদের দাবি সরকারের শ্রম দপ্তর প্রথমে তাঁদের আশ্বাস দিলেও,এখন ক্রমশই গা ছাড়া ভাব দেখাচ্ছে।কেন কর্তৃপক্ষ এভাবে কোন দায় না নিয়ে এতগুলো মানুষকে ছাঁটাই করলেও সরকারের কিছু করার থাকে না,কেন শ্রম আইন শ্রমিকদের কোন নিরাপত্তা দিতে অক্ষম?সে প্রশ্নের কোন উত্তর অবশ্য মেলেনি।

ফিরে দেখাঃ

কিছুদিন আগে  বাঁকুড়া বড়জোড়া ইউনিটের ৩৪ জন মেশিন কর্মীকে ছাঁটাই করার সিদ্ধান্ত নেয় কর্তৃপক্ষ। অন্তত এমনটাই অভিযোগ আনন্দবাজারের হাউসের  সামনে তাবু খাটিয়ে অবস্থানরত কর্মীদের ।কর্মীরা দাবি করেছেন  চুক্তিভিত্তিক কাজ করলেও তাঁদের  অনেকেই গত ১৪ বছর ধরে বিভিন্ন ঠিকাদারের অধীনে  কাজে বহাল করে আসছিল আনন্দবাজার কর্তৃপক্ষ।এবারও নতুন ঠিকাদারের সঙ্গে সেই মর্মে চুক্তি হয়ে গেছিল বলে ছাঁটাই কর্মীদের দাবি।এই কর্মীদের আরও দাবি বড়জোড়া ইউনিট ম্যানেজার নতুন ঠিকাদারের সঙ্গে পুরোন কর্মীদের রেখে দেওয়া নিয়ে চুক্তি হয়ে যাওয়ার বিষয়টা উত্থাপন করে,তাঁদের কাজে বহাল রাখার শর্ত দেওয়ায় আনন্দবাজার কর্তৃপক্ষ সেই ইউনিট ম্যানেজারকেও ছাঁটাই করে দিয়েছে।গোটা ঘটনার প্রতিবাদে বাঁকুড়ার বড়জোড়া থেকে একেবারে কলকাতায় এসে আনন্দবাজার অফিসের সামনে অবস্থান বিক্ষোভ শুরু করেছেন ছাঁটাই কর্মীরা।