অনলাইন ভর্তি তবু টাকার জুলুম,এ তো ভারি রঙ্গ!

শিক্ষামন্ত্রী ঘোষণা করেছিলেন কলেজে ভর্তিতে কোন দুর্নীতি বরদাস্ত করা হবে না।সেই মত অনলাইন ভর্তির ব্যবস্থা হয়েছে সর্বত্র।ফর্ম ফিলাপ থেকে ভর্তি সব যখন অনলাইনে তখন মনে করা হয়েছিল এবার হয়তো কলেজে ভর্তি নিয়ে সেই চেনা অরাজক অবস্থার ছবি সামনে আসবে না।ছাত্র-ছাত্রীরা কলেজে ঢুকতেই কোন নীতিহীনতার সঙ্গে পরিচিত হবে না।না ছবিটা শেষ পর্যন্ত সেরকম হোল না,অন্তত যে সব খবর সামনে আসছে তাতে অনলাইনে ভর্তি হবার পরেও নাকি কলেজের দাদারা অন্য ভাবে চাপ দিয়ে টাকা আদায় করতে ব্যস্ত পড়েছে বলে জানা যাচ্ছে।তালিকায় অনলাইনে নাম ওঠার পরেও,কলেজে গিয়ে হুমকির সামনে পড়ে টাকা দিতে বাধ্য হচ্ছেন কেউ কেউ।কলেজে কাউন্সিলিং এ এসেও হুমকির সামনে পড়তে হচ্ছে অভিভাবক ও ছাত্রছাত্রীদের।কলেজ কর্তৃপক্ষ বলছেন কলেজে ঢুকতে বাঁধা পেলে সেটা স্থানীয় এলাকার পুলিশ প্রশাসনের দেখার কথা,এ বিষয়ে তাদের নাকি কিছু করার নেই।আবার পুলিশ বলছে তাদের কাছে কেউ অভিযোগ দায়ের না করলে তাদের কিছু করার নেই।শিক্ষামন্ত্রী অবশ্য বলছেেন কেউ সমস্যায় পড়লে তাঁর কাছে অভিযোগ করলে ব্যবস্থা নেবেন।বাস্তব হোল কলেজ গুলোতে ছাত্র ছাত্রীদের সবসময় ছাত্র নেতাদের রক্ত চক্ষুর সামনে থাকতে হবে,তাঁরা কীভাবে পারবেন,সেই সব নেতাদের বিরুদ্ধে শিক্ষামন্ত্রীর কাছে নালিশ করতে।মুখ্যমন্ত্রী কলেজে ভর্তিতে টাকা চাইলে ব্যবস্থা নেবার কথা বলেছেন,তবুও সমস্যাটা থেকে যাচ্ছে,এ থেকেই বোঝা যায় সমস্যার ভিত অনেক গভীরে।প্রশাসনের উচিত গোড়া থেকে সমস্যাকে উপড়ে ফেলা।কেন্দ্রীয় ভাবে অনলাইন ব্যবস্থা চালু করতে সরকারের কেন আপত্তি বোঝা যাচ্ছে না।জুলুমবাজ ছাত্র নেতাদের প্রশাসন স্বঃতপ্রণোদিত হয়ে সনাক্ত করার চেষ্টা করছে না কেন সেই প্রশ্নটাও থাকছে।সাধারণ ছাত্র ছাত্রী ও তাদের অভিভাবকরা পরস্পর বিচ্ছিন্ন একা তাদের পক্ষে দুর্নীতির মোকাবিলা করা শক্ত,প্রশাসন ও সরকারকেই সে কাজটা করতে হবে।শুধু অনলাইনে ভর্তির ঘোষণা করলেই হবে না সেটা কার্যকরি করতে কী কী দরকার তাও সরকারকেই নির্ধারণ করতে হবে।সরকার সদিচ্ছা প্রকাশ করেছে অনলাইনে ভর্তির ঘোষণা করে,এবার সেটা কতটা আন্তরিক তার প্রমাণ সরকার যদি দিতে না চান তাহলে কিন্তু প্রশ্ন থাকবেই,ইতিমধ্যেই ভর্তি নিয়ে যে বাস্তব চিত্র সামনে আসছে তা সরকারের  সদিচ্ছার আন্তরিকতা নিয়ে সন্দেহ তৈরি করার পক্ষে যথেষ্ট।সরকার কলেজে ভর্তিকে অনলাইন করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে,তারপরেও কলেজে কলেজে ভর্তির জন্য টাকা চেয়ে জুলুমবাজি চলছে বিষয়টা কেমন যেন একটা রঙ্গ বলে মনে হচ্ছে।শিক্ষামন্ত্রী জানিয়েছিলেন,কোন প্রভাবশালীর সুপারিশেও একটা ভর্তিও অবলাইনে হবে না,তাই কি অনলাইনে ভর্তিতেও অর্থ আমদানির নতুন কৌশল তৈরি করে ফেললেন উন্নয়ন মুখি ছাত্রনেতারা?এ প্রশ্নের জবাব এড়িয়ে গেলে অনলাইনে ভর্তির বাগড়ম্বর শুধু প্রহসন বলেই থেকে যাবে।