নির্ভয়া গণধর্ষণে দোষীদের ফাঁসির অাদেশ বহাল রেখে রাষ্ট্রকে স্বস্তি সুপ্রিম কোর্টের

২০১২ সালে দিল্লিতে নির্ভয়া গণধর্ষণের ঘটনায় ৩ দোষীর ফাঁসির অাদেশ বহাল রাখল সুপ্রিম কোর্ট। এর অাগে ‍এই মামলায় দিল্লি হাইকোর্টের দেওয়া রায়কেই  ২০১৭ সালের ৫ মে সুপ্রিম কোর্ট বহাল রেখেছিল। যেখানে দোষী ৪জনের( মুকেশ,  পাওয়ান ও বিনয় ও অক্ষয়) ফাঁসির অাদেশ বহাল রেখেছিল। এই সিদ্ধান্তের  বিরুদ্ধে  সুপ্রিম কোর্টে পুনর্বিবেচানার অার্জি জানিয়েছিল অক্ষয় ছাড়া বাকি ৩ জন। এদিনও রায় বদল করল না দেশের সর্বোচ্চ অাদালত। কিন্তু প্রশ্ন ধর্ষকদের ফাঁসি দিলেই কি ধর্ষণ বা যৌন অত্যাচার কমবে?  নাকি দোষীরা যদি গরীব হয় তাহলে তাদের চট করে ফাঁসিতে ঝুলিয়ে দিয়ে মহিলাদের নিরাপত্তা দেওয়ার ক্ষেত্রে রাষ্ট্র তার দায় ঝেড়ে ফেলতে চাইছে?  কয়েক দিন অাগে গুরুগ্রামে এর পয়সাওয়ালা পরিবারে মেয়ের বন্ধুকে ধর্ষণ করে এক ব্যবসায়ী। তার কি ফাঁসি দিতে পারবে এই বিচার ব্যবস্থা? অথবা এরাজ্যে এক শ্রমজীবী মহিলা সুলতানাকে ধর্ষণ করে হত্যা করার অভিযোগ উঠলেও তা ধামাচাপা দিতে চাওয়া হচ্ছে বলে অভিযোগ মানবাধিকার কর্মীদের। মহিলাদের উপর অত্যাচারের ঘটনায় কেন এই দ্বিচারিতা?