নাগরিক অধিকারের দাবিতে জেলেই অনশন করতে চলেছেন মাওবাদী প্রসূণ

রাজনৈতিক বন্দিদেরও নাগরিক অধিকার আছে।তাদের জন্য কয়েকখানা পরিষ্কার পরিচ্ছন্ন রাখা।বাড়ির লোকজন দেখা করতে এলে নজরদারি না করা,একা কথা বলতে দেওয়া,মামলা সংক্রান্ত বিষয়ে উপযুক্ত তথ্য পরিচিতদের সরবরাহ করার সুযোগ দেওয়া,বাড়ির লোকজনরা দেখা করতে এলে তাঁদের হেনস্তা না করা।এই বিষয়গুলি যে কারোর বন্দি জীবনেও গণতান্ত্রীক নাগরিক অধিকার বলেই স্বীকৃত। তবে আলিপুর সংশোধনাগারে মাওবাদী বন্দি  প্রসূন চট্টোপাধ্যায়ের অভিযোগ আলিপুর জেল কর্তৃপক্ষ তাঁকে তার এই অধিকার থেকে বঞ্চিত করছে। মাওবাদী কার্যকলাপের সঙ্গে জড়িত এই অভিযোগে প্রসূনকে বিগত বেশ কয়েক বছর যাবত জেল বন্দি রাখা হয়েছে,রজ্যের বিভিন্ন জেলার একাধিক জেলে বন্দি থাকা প্রসূনকে সম্প্রতি আনা হয়েছে আলিপুর জেলে।এখানকারই জেল কর্তৃপক্ষের বিরুদ্ধে রাজবন্দিদের অধিকার না মেলার অভিযোগ তুলে অনশনে বসার সিদ্ধান্ত জানিয়ে দিয়েছেন প্রসূন চট্টোপাধ্যায়।তাঁর অভিযোগ জেলে তাঁর সঙ্গে কেউ দেখা করতে এলে তার সঙ্গে তাকে একা কথা বলতে দেওয়া হয়না।তখনও কোন না কোন পুলিশ কর্মী ঠায় তাদের সামনে দাঁড়িয়ে থাকেন।কোন তথ্য তিনি পুলিশকে না দেখিয়ে সরবরাহ করতে পারেন না।তাঁর ভাই তার সঙ্গে দেখা করতে এলে তাকে হেনস্তা করা হয় বার বার।জেলের ঘরের পরিবেশ অপরিচ্ছন্ন,অস্বাস্থ্যকর।অবিলম্বে এই বিষয়গুলির প্রতিকার না হলে তিনি জেলের ভেতরই অনশন শুরু করবেন বলে কর্তৃপক্ষকে জানিয়ে দিয়েছেন প্রসূন।দুদিনের মধ্যে দাবি মেটার প্রতিশ্রুতি না মিললে আগষ্টের এক তারিখ থেকেই অনশনে বসবেন বলে এই রাজনৈতিক বন্দির সিদ্ধান্ত।জেলে তাঁরা যে শ্রম দেন তার ভাতা কেন সময় মত ব্যাঙ্কে জমা পড়ে না সে প্রশ্ন তুলেও সরব হয়েছেন এই রাজনৈতিক বন্দি।তবে এ বিষয়ে কোন প্রতিক্রিয়া দেয় নি জেল কর্তৃপক্ষ।