এবার বিতর্কে সুপ্রিম কোর্টে জোসেফের শপথ অনুষ্ঠান

সুপ্রিম কোর্টের বিচারপতি হিসাবে বাধ্য হয়েই কেএম জোসেফের নামে সম্মতি দিয়েছে কেন্দ্র। অার তাই কি তা হজম করতে কষ্ট হচ্ছে সরকারের? সুপ্রিম কোর্টের বিচারপতি হিসাবে জোসেফের শপথ নেওয়া নিয়েও শুরু হয়েছে নয়া বিতর্ক। মঙ্গলবার সুপ্রিম কোর্টে বিচারপতি হিসাবে শপথ নেওয়ার কথা ৩জনের। অন্য ২ বিচারপতির থেকে  জোসেফ সিনিয়র হওয়া সত্ত্বেও তাঁকে সব থেকে শেষে শপথ নিতে বলা হয়েছে। এতে যথেষ্ট ক্ষুব্ধ সুপ্রিম কোর্টেরই বেশ কয়েকজন বিচারপতি। এই ইস্যুতে সোমবার প্রধান বিচারপতি দীপক মিশ্রের সঙ্গে দেখা করবেন তারা।

কয়কেদিন অাগেই সুপ্রিম কোর্টের বিচারপতির পদে নিয়োগের জন্য উত্তরাখন্ডের প্রধান বিচারপতি KM জোসেফের নামে  সিলমোহর দেয় কেন্দ্র।  গত এপ্রিল মাসে সু্প্রিম কোর্টের বিচরপতি নিয়োগের ক্ষেত্রে কেএম জোসেফের নামকে পুনর্বিবেচনার জন্য কলিজিয়ামের কাছে ফেরত পাঠিয়েছিল কেন্দ্র। গত মাসে কেন্দ্রের সেই ডাকে সাড়া না দিয়ে  KM জোসেফকেই সুপ্রিম কোর্টে  বিচারপতি করার জন্য  নাম পাঠায় কলিজিয়াম। অার তাই কোন উপায় না থাকায় কিছুটা বাধ্য হয়েও জোসেফকে সুপ্রিম কোর্টের বিচারপতি হিসাবে মেনে নিতে হচ্ছে কেন্দ্রেকে।

 

জোসেফকে সুপ্রিম কোর্টের বিচারপতি হিসাবে নিয়োগের ঘটনা বিচার ব্যবস্থার সঙ্গে কেন্দ্রের সংঘাত? নাকি অন্য কিছু!  সু্প্রিম কোর্টে বিচারপতি হিসাবে নিয়োগের জন্য  কলিজিয়ামের পাঠানো ২ জনের  মধ্যে একজনের ক্ষেত্রে আপত্তি জানিয়েছিল কেন্দ্র। দেশে প্রথম মহিলা আইনজীবী থেকে সুপ্রিম কোর্টের বিচারপতি হিসাবে ইতিমধ্যেই  শপথ নিয়েছেন  ইন্দু মালোহোত্রা। আপত্তি তুলেছে অপর জন, উত্তরাখন্ডের প্রধান বিচারপতি KM জোসেফের নামের ক্ষেত্রে। কেন্দ্রের যুক্তি সুপ্রিম কোর্টের বিচারপতি হিসাবে জোসেফের নাম পাঠানোর আগে তা যথাযতভাবে বিচার করা হয়নি। সিনিয়রিটির দিক থেকে তার স্থান ৪৫তম।আইন অনুযায়ী কেন্দ্রের আপত্তির পরও যদি জোসেফের নাম সু্প্রিম কোর্টের বিচারপতি হিসাবে কলিজিয়াম পুনরায় কেন্দ্রের কাছে পাঠানোয়,  সরকারের তাকে মানা ছাড়া অন্য কোন পথ এখন অার ছিল না।

কংগ্রেসের তরফে অভিযোগ করা হয়েছিল উত্তরাখণ্ডের প্রধান বিচারপতি হিসাবে জোসেফ রাষ্ট্রপতি শাসনের বিপক্ষে রায় দেওয়ায় কেন্দ্রের এই সিদ্ধান্ত।