অসমে নাগরিকপঞ্জীর কাজে যুক্ত শিক্ষকই অনুপ্রবেশকারী হওয়ায় গ্রেফতার !

অসমে নাগরিকপঞ্জীর চূড়ান্ত খসড়া প্রকাশের পর হঠাত্ করেই ৪০লক্ষ মানুষ নিজদেশে উদ্বাস্তু হয়ে গেছেন । যদিও সরকার এদেরকে বৈধ নাগরিক বলে মানতে নারাজ। এই বিতর্কের মধ্যেই অসমে গ্রেফতার হলেন এক স্কুল শিক্ষক, যিনি নাগরিকপঞ্জীর তালিকা তৈরির কাছে যুক্ত ছিলেন। ধৃত খইরুল ইসলাম প্রাথমিক স্কুলের শিক্ষক ছিলেন। ৪০০০০ সরকারি কর্মীর মধ্যে তিনিও নাগরিকপঞ্জী তৈরির কাছে যুক্ত ছিলেন। ১৩ অগস্ট সেই কাজ থেকে তাঁকে বরখাস্ত করা হয়।  বিদেশি ট্রাইব্যুনাল খইরুল ইসলমাকে বিদেশি বলে রায় দেয়।  জুন মাসে হাইকোর্ট সেই রায়কে বহাল রাখে। ১৯৭৫ সালের ২৫ জুনের পর অসমে অাসেন খইরুল। প্রশ্ন উঠছে তাই যদি সত্যি হয় তাহলে সে কী করে সরকারি স্কুলে শিক্ষকতার চাকরি পেল? যে ব্যক্তিকে বিদেশি অনুপ্রবেশকারী বলে বিদেশি ট্রাইব্যুনাল চিন্হিত করেছে তাঁকে নাগরিক পঞ্জী তৈরির কাছে নিয়োগ করা হল কেন  ?

সূত্র এনডিটিভি