কামারহাটিতে আইনের শাসন নেই অভিযোগ শাসকদলের নেতা মদন মিত্রের

কামারহাটিতে দূষ্কৃতীরা প্রকাশ্যে ঘুরে বেড়াচ্ছে। কোন আইনের শাসন সেখানে নেই।না কোন বিরোধী নেতা নয় রাজ্যের প্রাক্তন মন্ত্রী তথা শাসক দলের দাপুটে নেতা মদন মিত্র শুক্রবার তাঁর ফেসবুক লাইভে সরাসরি এই অভিযোগ তুলেছেন। সম্প্রতি কামারহাটি পুরসভার ২ নম্বর ওয়ার্ডের ভূতবাগানে একটি ক্লাব ঘরে ঢুকে জইনুল হক নামে এক ব্যক্তিকে প্রকাশ্যে গুলি করে খুন করে একদল দূষ্কৃতী।তারা খুন করে চলে যাওয়ার সময় মদন মিত্রের নামে জয়ধ্বনি দিতে দিতে যায়।এর পরেই এলাকায় অভিযোগ ওঠে মদন মিত্রের আশ্রিত গুন্ডারাই এই খুনের সঙ্গে জড়িত।শুক্রবারই এলাকায় গিয়ে ঐ জায়গা পরিদর্শন করে মদন মিত্র অভিযোগ করেন তাঁকে বদনাম করতেই দূষ্কৃতীরা তাঁর নামে জয়ধ্বনি দিয়েছে।শুধু তাই নয় গোটা কামারহাটি এলাকায় যে ভাবে আইনের শাসন ভেঙে পড়েছে তা নিয়ে সোচ্চার হন।এর পরে তাঁর ফেস বুক সাইভে মদনবাবু এইসব অভিযোগ তুলে বাম বিধায়ক মানস মুখোপাধ্যাকে এলাকার যাবতীয় দূষ্কর্মের জন্য দায়ী করেন।মদন মিত্রের অভিযোগ মানস বাবু র মদতেই কামারহাটি এলাকা গুন্ডাদের মুক্তাঞ্চল হয়ে উঠেছে।এমন পরিস্থিতির জন্য প্রাক্তন বিধায়ক হিসেবে তিনি উদ্বেগ প্রকাশ করেন।এমনকী এই পরিস্থিতি মোকাবিলা করতে তাঁর অসহায়তার কথাও জানান।পান্টা মানসবাবু এলাকায় দূষ্কৃতীদের সঙ্গে মদন মিত্রের যোগসাজসের প্রমাণ দিতে পারেন বলে সরব হয়েছেন।তবে সব কিছুকে ছাপিয়ে মদন মিত্রের এই উদ্বেগ ও অসহায়তা থেকে যে প্রশ্নটা সামনে চলে এল তা হল,রাজ্য প্রসাশন যে আইন শৃঙ্খলা রক্ষা করতে ব্যর্থ তা মেনে নিচ্ছেন রাজ্যের এক প্রাক্তন মন্ত্রী?আর যাই হোক রাজ্য প্রশাসন তো শাসক দলের হাতে,সেই প্রশাসন কামারহাটিতে গুন্ডা দমনে ব্যর্থ!মদন মিত্রের অভিযোগ থেকে সেই নির্যাসই কি বেড়িয়ে এল না!!!