চিকিত্সকদের কর্মবিরতির ডাকে বেসরকারি হাসপাতালগুলিতে কার্যত সার্বিক সাড়া

দাবি ছিল চিকিত্সকের উপর চড়াও হওয়া পুলিশ অফিসারের শাস্তি,সেই দাবিকে সামনে রেখে প্রথমে প্রতিবাদী মিছিল তারপর সাময়িক সময়ের জন্য পথ অবরোধ।বলা হয়েছিল দাবি গ্রাহ্য না হওয়া পর্যন্ত নানা উপায় প্রতিবাদ চলবে।সেই মত সিএমআরআইয়ের চিকিত্সক শ্রীনিবাসকে মারধোর করার অপরাধে অভিযুক্ত যাদপুর থানার ওসি পুলক দত্তের এখনও কোন শাস্তি না হওয়ায় শনিবার ছটি চিকিত্সক সংগঠনের য়ৌথ মঞ্চের আহ্বানে গোটা রাজ্য জুরে সমস্ত হাসপাতালে এক ঘন্টার কর্মবরতির ডাক দেওয়া হয়েছিল।প্রতিবাদী সংগঠনগুলির তরফে দাবি করা হয়েছে এদিনের কর্মবিরতির ডাকে বেসরকারি হাসপাতালগুলিতে কার্যত সার্বিক সাড়া মিলেছে।অধিকাংশ হাসপাতালেই কাজ বন্ধ রেখে চিকিত্সক ও চিকিত্সা কর্মীরা প্রতিবাদ জানিয়েছেন।সরকারি হাসপাতালগুলিতেও অনেক জায়গায় সাড়া মিলেছে বলে দাবি প্রতিবাদী চিকিত্সক সংগঠন যৌথমঞ্চের।সংগঠনের পক্ষ থেকে ডাক্তার রেজাউল করিম জানিয়েছেন সরকারি হাসপাতালগুলিতে তাঁরা নানা বাধ্যবাধকতার কারণে নোটিশ দিয়ে কর্মবিরতি পালনের ডাক দিতে পারেন নি,তবে বেসরকারি হাসপাতালগুলিতে তা সম্ভব হওয়াতে সার্বিক সাড়া মিলেছে বলে তাঁর দাবি।তবে সরকারি হাসপাতালগুলিতে অনেক জায়গায়তেই কাজ বন্ধ রেখে ডাক্তাররা রুগিদের সঙ্গে তাদের নানা সমস্যা নিয়ে কথা বলেছেন বলে জানিয়ে ডাক্তার করিম বলেন,এটাকেও আমরা প্রতিবাদের অংশ করে তুলতে চেয়েছিলাম,সাধারণ মানুষকে রাজ্যের স্বাস্থ্য পরিষেবার সমস্যা সম্পর্কে অবগত করে চিকিত্সক ও রুগির সম্পর্কের দুরত্ব কমিয়ে আনাও আমাদের লক্ষ্য,সেদিক থেকে তাঁদের শনিবারের কর্মসূচি সফল বলে দাবি করেন ডাক্তার রেজাউল করিম।প্রতিবাদী যৌথমঞ্চের আর এক সদস্য ডাক্তার পুন্যব্রত গুন জানান আজকের পর প্রশাসনের কোন টনক না নড়লে তাঁরা পরবর্তীতে আর কড়া কোন আন্দোলনের পথ বাছবেন।তবে যৌথমঞ্চের সদস্যরা বসেই সে বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেবে বলে জানান ডাক্তার গুন।অভিযুক্ত পুলক দত্তের শাস্তি না হলে তাঁরা য়ে আল্দোলন থেকে সরছেন না তা পরিষ্কার জানিযে দিযেছে প্রতিবাদী ছটি ডাক্তার সংগঠনের যৌথমঞ্চ।