আবারো আক্রান্ত মালদা কারিগরি কলেজের ছাত্ররা, প্রশাসনের ভূমিকা নিয়ে উঠছে প্রশ্ন

কেন্দ্রীয় সরকারের কলেজে পড়েও তাঁদের ডিগ্রি কীভাবে অবৈধ হয় তা নিয়ে লাগাতার প্রতিবাদ চালিয়ে যাচ্ছেন মালদার গণিখান চৌধুরির নামাঙ্কিত কারিগরি কলেজের ছাত্ররা।সেখানকার একদল ছাত্র এক্যাডেমির সামনে গত একমাস অবস্থান বিক্ষোভও করছে।প্রশাসনের হুশ হয়নি,কেউ তাদের সমস্যা নিয়ে কথা বলতে রাজি নয়।তাই মালদা কলেজ চত্ত্বর ও কলকাতার রাস্তায় তাঁরা ধারাবাহিক প্রতিবাদ অবস্থান করে চলেছেন।তবে এরই মধ্যে মালদার কলেজ চত্ত্বরে ঢুকে প্রতিবাদীদের উপর হামলা করেছে কর্তৃপক্ষের গুন্ডা বাহিনী ও পুলিশ। অন্তত এমনটাই অভিযোগ ছাত্রদের।এর আগে মেয়েদের উপরও নির্মম অত্যাচার করার অভিযোগ উঠেছিল।মেয়েদের জামা কাপড় ছিঁড়ে তাদের উপর হামলা করা হয়েছিল বলে অভিযোগ,এমনকী সেই অত্যাচারের ছবিও সামনে এসেছিল।মঙ্গলবার  সেই মালদা কলেজ চত্ত্বরের ভেতর আবার প্রতিবাদী ছাত্রদের উপর আক্রমনের ঘটনা ঘটল বলে অভিযোগ।এদিন দুপুরে আচমকাই একদল বহিরাগত কলেজে ঢুকে প্রতিবাদী ছ্ত্রদের মারধর করতে থাকে বলে অভিযোগ।পুলিশ এই আক্রমনে মদত জুগিয়েছে বলে প্রতিবাদী ছাত্রদের দাবি।পুলিশও নির্বিচারে ছ্ত্রদের মেরেছে।ব্লেড দিয়েও আক্রমন হয়েছে বলে খবর।মেয়েরাও একইরকমভাবে আক্রান্ত হয়েছে বলে অভিযোগ উঠেছে।এ বিষয়ে কর্তৃপক্ষের সঙ্গে কথা বলতে চেয়ে ফোন করা হলে তারা বিযয়টিকে বহিরাগতদের ঝামেলা বলে এড়িয়ে যায়।মেয়েদের মার খাওয়া ও শ্লীলতাহানী নিয়ে তাদের কাছে কোন খবর নেই বলে জানিয়ে দেন কলেজের এক আধিকারিক।উল্টোদিকে এর পেছনে কলেজ কর্তৃপক্ষের সম্পূর্ণ মদতের অভিযোগ তুলে প্রশাসনের কাছে বিচারের দাবি জানিয়েছেন প্রতিবাদী ছাত্ররা।আক্রান্ত মেয়েরা এ রাজ্যের সমস্ত গণতন্ত্র প্রিয় মানুষের কাছে আবেদন রেখেছেন তাঁরা যেন এভাবে একদল ছাত্রের ধারাবাহিক হেনস্তা হওয়া দেখেও চুপ না থাকেন।প্রতিবাদের আওয়াজ সব স্তর থেকে তোলার জন্য আবেদন রেখেছেন প্রতিবাদী ছাত্ররা।ধারাবাহিকভাবে এভাবে ছাত্ররা আক্রান্ত হওয়ায় প্রশাসনের ভূমিকা নিয়ে প্রশ্ন উঠতে শুরু করেছে।