তৃণমূলই রাজ্যে বিজেপিকে সুবিধা করে দিচ্ছেঃ অমর্ত্য সেন

এ রাজ্যে তৃণমূলের স্বৈরাচার বিজেপির জায়গা তৈরি করছে বলে মত দিলেন নোবেলজয়ী অর্থনীতিবিদ অমর্ত্য সেন।দিন কয়েক আগে এখানকার এক সংবাদ পত্রকে দেওয়া সাক্ষাতকারে এই জগত খ্যাত অর্থনীতিবিদ এদেশে বিজেপির উত্থানের বিপদ নিয়ে বিস্তারিত মত দেন।তাঁর মতে এদেশে সংসদীয় বামপন্থীদের ব্যর্থতাই বিজেপিকে ক্রমশ আগ্রাসী হয়ে উঠতে সাহায্য করেছে।বিজেপি বিভাজন রাজনীতির বিপদ সম্পর্কে মানুষকে সচেতন করা জরুরি বলে মনে করেন অমর্ত্য সেন।এ রাজ্যেও যে বিজেপি ক্রমশ শক্তিশালী হচ্ছে তা মেনে নিয়ে অমর্ত্য সেন জানান,রাজ্যে তৃণমূলের ক্ষমতা এখন প্রবল,অন্য রাজনৈতিক দলগুলিকে ভেঙে দিয়ে তৃণমূল তার ক্ষমতা বৃদ্ধি করছে।রাজ্যে সিপিএম ও কংগ্রেসের কোন ক্ষমতা নেই তাই এরকম পরিস্থিতিতে রাজ্যের শাসক দলের বিরোধী মনোভাবাপন্ন মানুষ বিজেপির দিকে ঝুঁকে পড়ছে।অমর্ত্য সেন জানান তিনি নিজে এরকম একাধিক মানুষের সঙ্গে কথা বলেছেন যাঁরা তাঁকে জানিয়েছেন যে বিজেপির প্রতি তাঁদের সহানুভুতি না থাকলেও তৃণমূলকে  আটকাতে বিজেপির সাহায্য দরকার বলেই তাঁরা মনে করেন।আর এখানেই এ রাজ্যে বিজেপির উত্থানে তৃণমূলের স্বৈরাচারকে দায়ী করতে চান এই বিশিষ্ট অর্থনীতিবিদ।তাঁর মতে গণতন্ত্রের পরিসরকে বিস্তৃত করার সুযোগ দিলে এমনটা হয়তো হত না,বামদের একেবারে শেষ করে দিতে গিয়ে রাজ্যের শাসক দল বিজেপির রাস্তা তৈরি করছে।অমর্ত্য সেন বলেন এখন এ রাজ্যে এমন একটা পরিস্থিতি যে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় ইচ্ছে করলেই আর স্বৈরাচারকে বন্ধ করতে পারবেন না,কারণ সবাই শাসক শিবিরে যেতে ব্যস্ত।এখন তৃণমূলকে শক্তিশালী মনে হলেও যে কোন সময় তারা ভাঙতে পারে বলে মত অমর্ত্য সেনের,তিনি বলেন,তৃণমূলের অবস্থা অনেকটা আগ্নেয়গিরির শিখড়ে পিকনিক করার মতো,একটা ভঙ্গুরতা ভেতরে ভেতরে কাজ করে যাচ্ছে।বিজেপি তার জন্যই অপেক্ষা করছে বলে মনে করেন অমর্ত্য সেন।এ দেশে সিপিএম ভোট সর্বস্ব ভাবনার কারণেই প্রাসঙ্গিকতা হারিয়েছে বলে জানিয়ে অমর্ত্য সেন বলেন বামপন্থী চেতনার মানুষজনকে নতুন করে ভাবতে হবে,দেশের এই ঘোর বিপদের দিনে নতুন করে জোটবদ্ধ হতে হবে।