দেড় মাস রাস্তায় হুশ নেই কারোর!!

এক এক দিন পেরিয়ে দেড় মাস হয়ে গেল,কলকাতার রাস্তায় অবস্থান বিক্ষোভ করে চলেছে ওরা।ওরা মানে মালদার গণিখান চৌধুরির নামাঙ্কিত কারিগরি কলেজের ছাত্ররা।সরকারি কলেজের ডিগ্রি কোন যুক্তিতে অবৈধ,শুধু এটুকুই জানতে চায় ওরা।জানতে চায় ওদের ভবিষ্যত কীহবে?তবে প্রশাসনের কেউ ওদের সঙ্গে কথা বলতে রাজি নয়।গত দেড় মাস সময় ধরে টানা এ্যকাডেমির সামনে অবস্থান চালিয়ে গেলেও প্রশাসনের ঘুম ভাঙেনি।রাজ্যপালের কাছে প্রতিবাদ পত্র দিয়ে এলেও কোন সুরাহার আশ্বাস মেলে নি।কোথায় যাবে ওরা,কী করবে ওরা কে ওদের বলে দেবে!! কোথাও নেই কোন সদুত্তর।কেন্দ্রীয় সরকারের অধিনস্থ একটা প্রতিষ্ঠান থেকে ডিগ্রি নিয়ে বেরিয়ে ওরা এখন জানতে পারছে এই ডিগ্রির কোন আইনি বৈধতা নেই,কেন নেই,কার দায় সে বিষয় কেউ কোন কথা বলছে না।এক আশ্চর্য সমস্যার মুখোমুখি ওরা,যার জন্য ওরা নিজেরা কোন ভাবেই দায়ী নয়।এ শহরের নাগরিক সমাজও ওদের নিয়ে অদ্ভুদ উদাসীন,একদল অল্পবয়সী তরুণ তরুণি দেড় মাস ধরে সুদুর মালদা থেকে কলকাতায় এসে রাস্তায় দিন কাটাচ্ছে,তাদের নিয়ে শহর কলকাতার কোন নাগরিককে উদ্বিগ্ন হতে দেখা যায় না,দেখা যায় না ওদের সমর্থনে পাশে গিয়ে দাঁড়াতে।এ রাজ্যের তথাকথিত বিশিষ্টজনরা যথারীতি শীতঘুমে মগ্ন।এরই মধ্যে মালদার কলেজ চত্ত্বরে দু দুবার আক্রান্ত হয়েছেন প্রতিবাদী,প্রতারিত এই কলেজের ছাত্র ছাত্রীরা।তবু বড় বড় মিডিয়া গুলি আশ্চর্য়জনকভাবে এদের ব্রাত্য করে দিয়েছে,মালদা কলেজের মত একটা সরকারি প্রতিষ্ঠানের এরকম প্রতারণার ঘটনা কেন খবর নয় কেউ জানে না।তাই মালদা কলেজের প্রতিবাদী ছাত্ররা এখন কলকাতার রাস্তায় বসে শুধুই শুনে চলেছে প্রাণহীন এই শহরের ইতিকথা।

,