তুলসিরাম ভুয়ো সংঘর্ষে ষড়যন্ত্রকারী ছিলেন অমিত শাহ জানিয়েছেন প্রধান তদন্তকারী অফিসার

২০০৬ সালের তুলসীরাম প্রজাপতি ভুয়ো সংঘর্ষে হত্যা মামলার মুখ্য তদন্তকারী অফিসার  বুধবার জানিয়েছেন বিজেপি সভাপতি অমিত শাহ ও ডিজি বানজারা সহ ৩ পুলিস অফিসার এই হত্যার ষড়যন্ত্রকারী। মুম্বইয়ে সিবিঅাই অাদালতে  প্রজাপতি হত্যার তদন্তকারী অফিসার সন্দীপ টামঘাটগে জানিয়েছেন  গুজরাটের তত্কালীন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ ও রাজস্থানের তত্কালীন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী গুলাবচন্দ কাটারিয়ার সঙ্গে অপরাধী তুলসীরাম ও সোরাবুদ্দিনের যোগাযোগ ছিল। অামেদাবাদের একজন প্রমোটারকে গুলি করার জন্য ২০০৪ সালে সোরাবুদ্দিন ও প্রজাপতিকে  নিযুক্ত করেছিলেন তারা। ২০০৫ সালে এক ভুয়ো সংঘর্ষে খুন করা হয় সোরাবুদ্দিনকেও।  সোরাবুদ্দিন শেখের ভুয়ো হত্যা মামলাতেও অন্যতম অভিযুক্ত ছিলেন অমিত শাহ। সোরাবুদ্দিন মামলার  বিচারপতি লোয়েরা রহস্যজনক মৃত্যুর পর নতুন বিচারপতি নিযুক্ত হওয়ার পর বেকসুর খালাস পান  অমিত শাহ।

অমিত শাহের বিরুদ্ধে খুনের অভিযোগ নতুন উঠছে না। ২০০৩ সালে  গুজরাটের প্রাক্তন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী হারেন পান্ডিয়াকে খুন করার জন্য সোরাবুদ্দিন শেখকে  বরাত দিয়েছিলেন গুজরাট পুলিস কর্তা ডিজি  বানজারা। অার খুন করেছিল তুলিসরাম প্রজাপতি। সম্প্রতি অাদালতে এই তথ্য জানিয়েছেন সোরাবুদ্দিন শেখ খুনের মামলার অন্যতম এক সাক্ষী  অাজম খান। অাজমের দাবি সোরাবুদ্দিন তাকে এই কথা বলেছিল। ২০০৩ সালে অামেদাবাদে খুন হন হারেন পান্ডিয়া।  এর পরই গুজরাটের এক সাংবাদিক খোলা চিঠি লিখে জানান তাই যদি সত্যি হয় তাহলে বানজারাকে কে নির্দেশ দিয়েছিল এই সুপারি কিলার নিযুক্ত করতে। হারেন পান্ডিয়া ঘনিষ্ঠ ওই সাংবাদিকের অভিযোগের তির অমিত শাহের দিকেই ছিল।

সূত্র- ইন্ডিয়ান এক্সপ্রেস, স্ক্রল