যে সিঙ্গুর বামেদের ভিত নাড়িয়ে দিয়েছিল,সেই সিঙ্গুর থেকেই আবার ঘুরে দাঁড়াতে মরিয়া বামেরা

দুদিন ধরে সিঙ্গুর থেকে টানা পায়ে হেঁটে কৃষকরা উপস্থিত হয়েছিলেন ধর্মতলায়,সিপিএমের কৃষক সংগঠন কৃষক সভার আহ্বানে।ধর্মতলায় কৃষক সমাবেশে দলের নেতারা দাবি করলেন যে সিঙ্গুরকে একসময় বামেদের বিরুদ্ধে ক্ষেপিয়ে রাজ্য সরকারের বদল ঘটিয়ে ক্ষমতায় এসেছিলেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়,ক্ষমতায় এসে সেই সিঙ্গুরের মানুষের সঙ্গে চরম প্রতারণা করেছেন মমতা।শিল্প হয় নি,কৃষি জমিও ফেরত পায় নি কৃষক।তাই কৃষক সমাবেশ ঘটিয়েই প্রতিবাদের আয়োজন।ধর্মতলার রাণী রাসমনি রোডে এদিন বামেদের সমাবেশে উপস্থিতি ছিল নজরে পড়ার মত।গোটা এলাকায় লাল পতাকার সমাহার দেখে বোঝার উপায় ছিল না যে এ রাজ্যে বামেরা ক্রমশ শক্তি হারাচ্ছে।উত্সাহ ও উদ্দিপনা ছিল সবার সধ্যেই।নেতাদের বক্তব্যে তাই লড়াইয়ের আহ্বান ছিল।অধিকার আদায় করে নেওয়ার জন্য সার্বিক লড়াইয়ের আহ্বান জানিয়ে রাজ্য সিপিআইএমের রাজ্য সম্পাদক সূর্য কান্ত মিশ্র বলেন,মোদী ও দিদি দুজনেই কৃষকদের স্বার্থ ভুলে সাম্প্রদায়িকতাকে উসকে দিতে চাইছে,ধর্মের জিগির তুলে ভোট চাইছে,তাই বামপন্থীদের এই সময়ে সজাগ থাকতে হবে,মানুষকে তাঁদের প্রকৃত সমস্যা কী তা বোঝাতে হবে।সম্মিলিত লড়াই ছাড়া মোদী ও দিদিকে প্রতিহত করা যাবে না বলে মত দেন সুর্যবাবু।অন্যান্য বক্তারাও আজকের সময়ে কৃষক ও শ্রমিকদের একত্রিত লড়াইয়ের উপর জোর দেন।সভার শেষে রাজভবনে গিয়ে স্মারক লিপি জমা দেন কৃষক সভার নেতারা।