ব্রিগেডের সভার অায়োজন কি ভূতে করে?

0
11

শনিবার তৃণমূল কংগ্রেসের ব্রিগেড সমাবেশ। ২০১৯ এর লোকসভা ভোটের অাগে নিজের বা দলের ক্ষমতা প্রদর্শনের এই গণতান্ত্রিক কর্মসূচী নিয়ে কারো কিছু বলার থাকতে পারে না। যদিও জোর করে লোক অানা হচ্ছে বলে বিরোধীরা অভিযোগ করেছেন। যে কোন ব্রিগেডে কীভাবে লোক অানা হয় তা নিয়ে অন্য একটা অালোচনা হতে পারে। কিন্তু এই বিশাল কর্মকান্ডের জন্য প্রয়োজনীয় অর্থ কীভাবে অাসছে তা নিয়ে কোথাও কোন অালোচনা শোনা যাচ্ছে না। ঠিক কত টাকা বাজেট এই ব্রিগেড সভার তাও জানার অধিকার গণতান্ত্রিক দেশের জনতার অাছে বলে মনে হয় না। শোনা যায় নি ব্রিগেডের সভার জন্য কোন চাঁদা বা অর্থ সংগ্রহের কর্মসূচী তৃণমূল নিয়েছে। তাহলে এত বিপুল অর্থ অাসছে কোথা থেকে? একটি নির্দিষ্ট অঙ্কের বেশি বাজেটের পুজো কমিটিগুলোকে তলব করেছে অায়কর দফতর। অথচ তারাও ব্রিগেডের সভার অায়োজনের টাকার উত্স জানতে অাগ্রহী নয় । বোধ হয় ১৯ এর ব্রিগেডের পর রয়েছে বিজেপির ব্রিগেড। তাই কি কাউকে ঘাঁটাতে উত্সাহ পাচ্ছে না অায়কর দফতর। তৃণমূলকে যারা পছন্দ করে না তাদের অনেকেই বলছেন যে বা যারা এই দলীয় সভার জন্য টাকা ঢালছে তারা কি জনগনের পকেট কেটে সেই টাকার কয়েকগুল তুলে নেবে না। তাদের এই কথার কোনো অাইনি মানে হয় না কারণ সভার অায়োজনের জন্য কেউ টাকা দিচ্ছে তা প্রমাণ এখনও হয়নি। তাছাড়া দিদিমনি ছবি এঁকে ও বইয়ের রয়্যালটি বাবদ অর্থও তো দলীয় কাজে দিয়ে থাকেন। এক্ষেত্রেও হয়তাে দিয়েছেন। তাই ব্রিগেড উপলক্ষে ঢালাও অায়োজন নিয়ে অকারণ প্রশ্ন করার বাতিক কিছু লোকের থাকে তাদের পাত্তা দেওয়ার দরকার নেই।