প্রধানমন্ত্রী হওয়ার অঙ্ক কষা ছাড়তে বিরোধীদের সতর্ক অরুণ শৌরির

রাজ্যজুড়ে গত এক মাসেরও বেশী সময় ধরে লাগাতার প্রচার চালিয়ে এসেছেন তৃণমূলের নেতা ও কর্মীরা ১৯ জানুয়ারি ব্রিগেড সভার জন্য।সেই সভা ও মিছিলে একটাই স্লোগান উঠেছে দেশের প্রধানমন্ত্রী করতে হবে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে।দেশের বিভিন্ন রাজ্য থেকে আসা নেতারা এই দাবিকে কতটা মান্যতা দিচ্ছেন তা বোঝা যাবে এই সভা থেকেই।এমনটাই প্রত্যাশা ছিল তৃণমূল নেতৃত্বের।তবে শনিবারের সভায় প্রধানমন্ত্রী হিসেবে কাউকে চিহ্নিত না করে দেশের সব নেতারাই জানিয়ে দিলেন বিজেপিকে হটানোটাই এখন প্রধান লক্ষ্য হওয়া উচিত,এর জন্য ঐক্যবদ্ধ হওয়া প্রয়োজন।নরেন্দ্র মোদীকে হটিয়ে প্রধানমন্ত্রীর চেয়ার পাওয়ার একটটা প্রত্যাশা যে বিভিন্ন আঞ্চলিক দলের নেতাদের মধ্যেও তৈরি হয়েছে তা বুঝতে পেরেই এদিন ব্রিগেড সভায় উপস্থিত হওয়া প্রাক্তন বিজেপি নেতা ও মন্ত্রী অরুণ শৌরি যেন কিছুটা খোঁচা দেওয়ার ঢঙেই বলে দিলেন,প্রধানমন্ত্রীর চেয়ার পাওয়ার ক্যালকুলেশন ছেড়ে,স্যাক্রিফাইসের ক্যালকুলেশন না করতে পারলে কিন্তু মোদীকে হারানো শক্ত হয়ে উঠবে।এদিন উপস্থিত সব নেতারাই ঐক্যবদ্ধ বিরোধী জোটের কথা বলেন।তার মধ্যে অরুণ শৌরির এই বক্তব্য বিশেষ মাত্রা বহন করে বলেই মনে করা হচ্ছে।বিরোধী ঐক্য যে প্রধানমন্ত্রী পদে কাউকে প্রজেক্ট না করেও হতে পারে এদিনের ব্রিগেডের সভা তারও ইঙ্গিত দিয়ে রাখল বলেই মনে করা যায়।এই ইঙ্গিত দিয়েই সভায় শেষ বক্তব্য রাখেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়,তাঁর মতে কে প্রধানমন্ত্রী হবেন ভোটের পর দেখা যাবে,এখন দরকার বিজেপি বিরোধী জোট।অন্য রাজ্যে বিজেপি বিরোধী এরকম জনসভা হলে তাতে তিনিও সামিল হবেন বলে জানান তৃণমূল সুপ্রিমো।