“মায়ের” বিরুদ্ধে জেহাদ ঘোষণা করে ভারতী ঘোষ বিজেপিতে

এক সময় এ রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রীকে তিনি জঙ্গলমোহলের মা বলে চিনিয়েছিলেন,মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের সবচেয়ে অনুগত পুলিশ আধিকারিকের তালিকায় তাঁর নাম ছিল প্রথম সারিতে।জঙ্গলমোহলজুড়ে তাঁর কথা মানেই তৃণমূল সুপ্রিমোর কথা বলে মানা হোত।সেই একসময়কার এ রাজ্যের দাপুটে আইপিএস অফিসার ভারতী ঘোষ এখন “মায়ের” বিরুদ্ধে তুমুল জেহাদ ঘোষণা করে যোগ দিলেন বিজেপিতে।সোমবার বিজেপির দিল্লি অফিসে গিয়ে আনুষ্ঠানিক যোগদান পর্বটা সেরেই ফেললেন ভারতী ঘোষ।তাঁর বিজেপিতে যোগদান করা নিয়ে অবশ্য অনেকদিন ধরেই জল্পনা ছিল।রাজ্য সরকার তাঁকে গত বছর আচমকাই পদ থেকে সরিয়ে দেয়,তারপর থেকেই মমতার সঙ্গে তাঁর সংঘাত শুরু।রাজ্য পুলিশ তাঁকে নানা কেসে ফাঁসাতে চাইছে বলেও অভিযোগ করেন ভারতী ঘোষ।তাঁর স্বামীকেও রাজ্য পুলিশ গ্রেপ্তার করে।সেই মামলা এখনও বিচারাধীন।ভারতী ঘোষ নিজেও এ রাজ্যের পুলিশের নজর এড়িয়ে অন্য রাজ্যে গা ঢাকা দেন।দীর্ঘদিন তিনি প্রকাশ্যে আসেন নি।রাজ্য পুলিশ অনেক চেষ্টা করেও তাঁর নাগাল পায় নি।তখন থেকেই গুঞ্জন ছিল ভারতী ঘোষ বিজেপির আশ্রয়েই আছেন।সোমবার আচমকা তিনি যখন বিজেপিতে যোগ দিলেন তখন রাজ্যে তৃণমূল ও বিজেপি সংঘাত একেবারে চরমে।রাজ্য পুলিশের উচ্চপদস্থ আধিকারিক রাজীবকুমারকে সিবিআই জেরা করতে গিয়ে রাজ্যপুলিশের দ্বারা আক্রান্ত হয়েছেন বলে অভিযোগ করে সুপ্রিমকোর্ট পর্যন্ত চলে গেছে।একটা ভরতীদেবীর ‘মা”মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় সিবিআই তথা বিজেপির বিরুদ্ধে রাজনৈতিক প্রতিহিংসার অভিযোগ তুলে ধর্মতলায় ধর্ণায় বসে রয়েছেন।আর ঠিক সময়তেই মমতার একসময়কার অনুগত পুলিশ আধিকারিক ভারতী ঘোষ বিজেপিতে যোগ দিয়ে মমতার বিরুদ্ধে প্রতিহিংসা ও পুলিশ আধিকারিকদের দলীয় স্বার্থে ব্যবহারের অভিযোগ তুলছেন।এই ঘটনাকে খুবই মাত্রাবহ বলে মনে করছে রাজনৈতিক মোহল।অনেকেই মনে করছেন এবার ভারতী ঘোষকে দিয়ে আর অনেক চমক দিতে চলেছে বিজেপি।ভোট এগিয়ে আসার সঙ্গে সঙ্গে আর অনেক নাটকীয় চমক অপেক্ষা করে আছে কিনা সেটাই এখন দেখার!বিজেপি চমক দিতে পারে এটা বুঝেই কী মমতাও রাজীবকুমারের পক্ষে এতটা উগ্র অবস্থান নিয়ে কোন রাজনৈতিক নাটকের চিত্রনান্য সাজিয়ে ফেলতে চাইছেন?সে প্রশ্নও উড়িয়ে দেওয়া যাচ্ছে না।