হরিশ চ্যাটার্জি স্ট্রিট এলাকার ৩৫টি প্লট মুখ্যমন্ত্রীর পরিবারের দখলে,’গণশক্তি’র চাঞ্চল্যকর প্রতিবেদন

এক এক করে ৩৫টি প্লট চলে গেছে কোন একটি নির্দিষ্ট পরিবারের কব্জায়। আর গোটা বিষয়টাই হয়েছে রাজনৈতিক প্রভাবের জোরেই। হাঁ,হরিশ চ্যাটার্জি স্ট্রিট এলাকার অধিকাংশ জমির মালিকানা এখন মুখ্যমন্ত্রীর পরিবারের কব্জায়. এমনটা জনিয়েই চাঞ্চল্যকর প্রতিবেদন প্রকাশিত হয়েছে গণশক্তি পত্রিকায় । প্রতিবেদনে নাম ধরে ধরে কোথায় কার জমি নেওয়া হয়েছে তার উল্লেখ করা হয়েছে। রিপোর্টে দাবি করা হয়েছে এই সব জমির মালিকানা এখন স্বপন বন্দ্যোপাধ্যায় ও অজিত বন্দ্যোপাধ্যায়ের,যাঁরা সম্পর্কে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের ভাই। এলাকার কিছু মানুষের বক্তব্য তুলে ধরা হয়েছে প্রতিবেদনে,যা থেকে মনে হয়,একরকম জোর করেই একাধিক জমি দখল করা হয়েছে।অনেকেই পুলিশের কাছে অভিযোগ জানিয়েও যে কোন সুরাহা পান নি তাও উল্লেখ করা হয়েছে প্রতিবেদনে।জলা জমি ভরাট করারও অভিযোগ আছে প্রতিবেদনে।কিছু জমি নিয়ে এখনও যে মামলা চলছে তার উল্লেখ করে বলা হয়েছে এক্ষেত্রে রাজনৈতিক প্রতিপত্তির জোরেই সব কিছু চাপা দেওয়ার প্রয়াস চলছে।সুদিপ্ত বসুর নামে প্রকাশিত এই প্রতিবেদনে অবশ্য অভিযোগ যাদের বিরুদ্ধে তাদের কোন বক্তব্য ছাপা হয় নি।শুধুমাত্র এলাকার এক তৃণমূল নেতার বক্তব্য তুলে ধরে বলা হয়েছে যাদের জমি নেওয়া হবে তাদের অন্যত্র ব্যবস্থা করে দেওয়া হচ্ছে,তাতে সমস্যার কি আছে বলে সেই নেতা নাকি প্রশ্নও তুলেছেন বলে প্রতিবেদক তাঁর রিপোর্টে লিখেছেন। প্রতিবেদন প্রেক্ষিতে গণশক্তি পত্রিকার সঙ্গে যোগায়োগ করা হলে তাদের তরফে জানান হয়েছে তারা যে রিপোর্ট প্রকাশ করেছেন সেই সম্পর্কে তথ্য অাছে বলেই তা করেছেন। এখন দেখার শাসকদল গণশক্তির এই রিপোর্টের জেরে কী করে?

,