ঋণ খেলাপিদের বিরুদ্ধে রিজার্ভ ব্যাঙ্কের সার্কুলার খারিজ হওয়ায় কী বার্তা গেল?

২০১৮ সালের ফেব্রুয়ারি মাসে রিজার্ভ ব্যাঙ্কের জারি করা সার্কুলার খারিজ করে দিল সুপ্রিম কোর্ট। দেশের সর্বোচ্চ অাদালত মঙ্গলবার জানিয়েছে এই ধরনের সার্কুলার জারি করার এক্তিয়ার নেই কেন্দ্রীয় ব্যাঙ্কের। ফেব্রুয়ারি সার্কুলার অনুযায়ী ২০০০ কোটি টাকার বেশি ব্যাঙ্ক ঋণ থাকা সংস্থার যদি ঋণ শোধ করতে ১দিনও দেরি হয় তাহলে তাকে নোটিস জারি করে ১৮০ দিনের মধ্যে পরিশোধের রূপরেখা ঠিক করতে হবে ব্যাঙ্ক। সংস্থাটা তাতে রাজি না হলে তাকে দেউলিয়া ঘোষণার প্রক্রিয়া পাঠাতে হবে ব্যাঙ্ককে। এখানেই অাপত্তি সুপ্রিম কোর্টের । সুপ্রিম কোর্ট জানিয়েছে এটা করতে হলে কেন্দ্রের অনুমোদন লাগবে যা রিজার্ভ ব্যাঙ্ক নেয়নি। তবে একক ঋণ খেলাপিদের ক্ষেত্রে ব্যাঙ্কে তার বিবেচনা অনুযায়ী ঋণ অাদায়ের জন্য ব্যবস্থা নিতেই পারে। সু্প্রিম কোর্টের এই রায় ঋণ খেলাপিদের গোষ্ঠী যেমন উল্লসিত তেমনই হতাশ রিজার্ভ ব্যাঙ্ক। অনেকে বলছেন সার্কুলার তৈরির করার সময় নামিদামি অাইনজীবীদের পরামর্শ নেওয়া উচিত ছিল রিজার্ভ ব্যাঙ্কের। প্রয়োজনে সরকারের সঙ্গেও অালোচনা করে নেওয়া উচিত ছিল। প্রশ্ন উঠছে তাহলে বড় বড় ঋণ খেলাপিদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া কি কোনদিনই যাবে না? মিডিয়া রিপোর্ট অনুযায়ী বিদ্যুত উত্পাদনের সঙ্গে যুক্ত ঋণ খেলাপি কোম্পানিগুলির হয়ে সুপ্রিম কোর্টে সওয়াল করেন তৃণমূল সমর্থিত কংগ্রেস সাংসদ তথা অাইনজীবী অভিষেক মণু সিংভি।

,