তৃণমূলের ঘর ভাঙা শুরু হওয়ার আশঙ্কা

নির্বাচনের ফল ঘোষণার পর থেকেই তৃণমূলের অন্দরে কলহ শুরু হওয়ার লক্ষণ দেখা দিয়েছে।মকুল রায়ের পুত্র শুভ্রাংশু রায় শুক্রবারই সাংবাদিক সম্মেলন করে জানিয়ে দেন তিনি তাঁর বাবার জন্য গর্বিত বোধ করেন।রাজনীতিতে তাঁর বাবার কৌশলের কাছেই যে গোটা তৃণমূল পর্যুদস্ত সে কথাও সোচ্চারে বলেছেন মুকুল পুত্র।এর পরই তাঁকে দল থেকে ছ বছরের জন্য সাসপেন্ডের সিদ্ধান্তের কথা জানান তৃণমূলের মহাসচিব পার্থ চট্টোপাধ্যায়।শুভ্রাংশু এরপর তাঁর প্রতিক্রিয়া দিয়ে বলেন কোন শোকজ নোটিশ না দিয়ে এভাবে কাউকে সাসপেন্ড করা যায় না।একই সঙ্গে দলকে তিব্র কটাক্ষ করে তিনি বলেন যে দলটা আর ছমাস টিঁকবে কিনা তার কোন গ্যারান্টি নেই সে দল আবার কাউকে ছবছরের শাস্তি দেবে কী করে?এদিকে শনিবার সকাল থেকেই শুভ্রাংশুর বিজেপিতে যোগ দেওয়া নিয়ে চর্চা শুরু হয়ে গেছে।শনিবার সকালেই তৃণমূলের বিরুদ্ধে তাঁকে খুন করার চক্রান্ত হচ্ছে বলে বিবৃতি দিয়েছেন শুভ্রাংশু রায়।অন্যদিকে বিধাননগরের মেয়র সভ্যসাচী দত্তও দলের বিরুদ্ধে মুখ খুলতে শুরু করেছেন তিনিও যে কোন দিন বিজেপিতে যোগ দিতে পারেন বলে খবর।শনিবারই সভ্যসাচী দত্ত দলের মন্ত্রী সুজিত বসুকে তীব্র কটাক্ষ করে বলেন নিজের এলাকায় হেরে যাবার পরও কেন োকে তৃণমূলে রেখে দেওয়া হয়েছে?যার পাল্টা দিয়েছেন সুজিতও।সব মিলিয়ে অন্দর কলহে রাজ্যের শাসক দল যে এখন বেশ বিপাকে তা পরিষ্কার।এখন দেখার এই কলহ শেষ পর্যন্ত তৃণমূলের ঘর ভাঙাকে কতটা তরান্বিত করে।