সন্তোষ রাণা প্রয়াত

0
6

প্রযাত হলেন নকশাল নেতা সন্তোষ রাণা।শনিবার সকালে তাঁর মৃত্যু হয়,মৃত্যু কালে তাঁর বয়স হয়েছিল ৭৫ বছর।সন্তোষবাবু দীর্ঘদিন ধরেই ক্যানসারে ভুগছিলেন।বর্ণময় রাজনৈতিক ব্যক্তিত্য হিসেবেই সন্তোষ রাণার পরিচিতি।সত্তরের দশকে কট্টর পন্থী নকশাল নেতা চারু মজুমদারের সহযোগী হিসেবে শ্রেণী সংগ্রামকেই বিপ্লবের একমাত্র হাতিয়ার বলে লড়াই শুরু করেও তিনি পরবর্তী সময়ে সংসদীয় গণতন্ত্রের পথেই বামপন্থাকে এগিয়ে নিয়ে চলার পক্ষে মত দেন।জীবনের শেষ প্রান্তে এসে সন্তোষ রাণা এদেশে ক্রমে বাড়তে থাকা ফ্যাসিবাদের ভয়াবহতা প্রতিরোধে কংগ্রেসের সঙ্গে সখ্য তৈরির পক্ষেও মত দেন।সত্তরের নকশাল আন্দোলন নিয়ে তাঁর ব্যাখ্যা তাঁর একসময়কার অনেক সঙ্গীকেও খুশি করতে পারেনি,অনেকেই মনে করেন চারু মজুমদারদের নকশাল মতাদর্শ থেকে সন্তোষ রাণারা অনেকটাই সরে এসেছিলেন।সংসদীয় পথে বামপন্থাকে শক্তিশালী করার পক্ষে সন্তোষ রাণা শেষ জীবনে ধারাবাহিক মত দিয়ে গেলেও তিনি যখন মারা যাচ্ছেন তখন এ দেশের বাস্তবতা বলছে সংসদীয় পথে থেকে বামেরা তাদের শক্তি বৃদ্ধি করতে তো পারেই নি বরং তাদের প্রভাব ক্রমেই কমতে কমতে শেষ হবার মুখে।উন্টোদিকে সংসদীয় পথকে বর্জন করে যে বামপন্থা লড়াই চালাচ্ছে,তাঁরাও নানা সমস্যায় জর্জরিত,গণআন্দোলনে তাঁদের কোন ভূমিকা চোখে পড়ছে না।সবমিলিয়ে রাজনৈতিক মতাদর্শকে একগভীর সংকটের মুখে রেখেই চলে গেলেন সত্তরের বর্ণময় রাজনৈতিক ব্যক্তিত্ব সন্তোষ রাণা।