RANBAXY এর ল্যাবের বাস্তবে কোন অস্তিত্বই নেই!

0
8

অামাদের অনেকেরই একটা ধারনা অাছে বড় ব্রান্ড বা কোম্পানি মানে জিনিসটা ভাল। ওষুধের ক্ষেত্রে এটা অারো সত্য। তাই সস্তার বা অপেক্ষাকৃত কম দামের অনামি কোম্পানির ওষুধ মানেই বাজে। কিন্তু এদেশের নামিদামি ওষুধ কোম্পানি যথা রেনবাক্সি, গ্লিনমার্ক, ওখার্ড , রেড্ডি যে সব জেনেরিক ওষুধ এদেশের জন্য তৈরি করে তাদের অনেকগুলোই বাজে ফালতু। অন্তত এমনটা দাবি করেছেন ক্যাথরিন এবান তার বই Bottle of Lies: Ranbaxy and the dark side of Indian Pharma. এই বইটিতে এই বইটির রিভিউ করেছেন স্বয়ং করণ থাপার। বই এ লেখক জানাচ্ছেন এদেশে ওয়ুধের গুনমান নিয়ন্ত্রণের বিষয়টা এতটা হাল্কা তাকে পাত্তাই দেয়না ওষুধ নির্মাতা কোম্পানিগুলি। বিদেশের ক্ষেত্রে তা একেবারে উল্টো। অামেরিকায় রপ্তানি করা ওষুধরে গুনমানে ঘাটতি থাকায় রেনব্যাক্সিকে ২০১৩ সালে ৫০ কোটি ডলার জরমানা করে সে দেশের অাদালত। লেখক রেনব্যাক্সির উপর তথ্য অনুসন্ধান করে দেখেছেন গবেষণার নামে যে ল্যাবের উল্লেখ করেছে রেনব্যাক্সির বাস্তবে তার কোন অস্তিত্বই নেই।