চিদম্বরমের রাজনৈতিক আক্রমণ সহ্য করতে না পেরেই তাঁর উপর আক্রমণ নামাতে চায় বিজেপি অভিযোগ অধীরের

0
1

প্রাক্তন অর্থ ও স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী পি চিদাম্বরমের আক্রমণ সহ্য করতে না পেরেই তাঁর বিরুদ্ধে প্রতিহাংসা চরিতার্থ করতে নেমে পড়েছে বিজেপি সরকার এমনটাই অভিযোগ করলেন,কংগ্রেসের সংসদীয় দলের নেতা অধির চৌধুরি। এদিন তিনি অত্যন্ত আক্রমনাত্মক ভঙ্গিতে বিজেপির সমালোচনা করে বলেন,সংসদে এবার যে ভঙ্গিতে ৩৭০ ও সরকারের দুর্নীতি নিয়ে চিদম্বরম সরব হয়েছিলেন তা হজম হয় নি অমিত শাহদের। সেই কারণেই এভাবে তাঁর বিরুদ্ধে একেবারে সর্বাত্মক আক্রমণে নেমেছে বিজেপি।বিজেপি বিরোধী স্বরকে একেবারে মুছে দিতে চায় এবং তা গণতন্ত্রের কন্ঠ চেপে ধরে এই অভিযোগ করতেও পিছপা হননি অধীরবাবু।

প্রসঙ্গত এবার এ রাজ্য থেকে কংগ্রেসের মাত্র দুজন সাংসদ নির্বাচিত হয়েছে,তার মধ্যে একজন অধীর চৌধুরি।তুমুল প্রতিকুলতাকে অতীক্রম করে এবার অধীরবাবু জয়লাভ করেছেন,এ রাজ্যে কংগ্রেসের ক্রম ক্ষয়ে যেতে থাকায় গুজব ছড়িয়েছিল যে অধীরবাবুও বিজেপিতে যোগ দিতে পারেন।অনেকেই মনে করেন সেই আশঙ্কা থেকেই এবার কংগ্রেসের শীর্ষ নের্তৃত্ব অধীর চৌধুরিকে লোকসভায় বাড়তি গুরুত্ব দিয়েছে।লোকসভার নেতা হয়েই অধীর চৌধুরি ক্রমাগত বিজেপিকে আক্রমণ শানাতে শুরু করেন।সেই ধারাবাহিকতায় এদিন তিনি চিদম্বরমের গ্রেপ্তার নিয়ে ক্ষোভ উগরে দেন।বিজেপি ধর্মীয় উগ্রতা ছড়িয়ে দেশের সাম্প্রদায়িক পরিস্থিতিকে বিষিয়ে তুলতে চায় বলেও তোপ দাগেন অধীর চৌধুরি।অধীরবাবুর কথায় দেশকে ভাগ জাত-ধর্মে ভাগ করে গণতন্ত্রকে একমুখি করে তুলতে সবদিক থেকে আক্রমণ চালাতে শুরু করেছে বিজেপি।বিরোধীদের মুখ বন্ধ করতে সিবিআই আর ইডিকে দিয়ে রাজনৈতিক প্রতিহিংসা চরিতার্থ করতে প্রয়াস চালিয়ে যাচ্ছে তারা।

তবে এসব করেও কংগ্রেসকে দমিয়ে রাখা যাবে না বলে জানিয়ে দেন অধীর চৌধুরী।তিনি বলেন কংগ্রেস হল সেই দল যা এ দেশের ঐক্যকে ধারন করে আছে।দেশের ঐক্য ও সংহতির জন্য প্রাণ দিয়েছেন,গান্ধীজি থেকে ইন্দিরা গান্ধী ও রাজীব গান্ধী,মানুষ তা মনে রাখবেন।এদেশের মানুষ কংগ্রেসের অবদানকে ভুলে যেতে পারে না।মানুষই বিজেপির রাজনীতির বিষ একদিন সরিয়ে দেবেন বলে আশা প্রকাশ করেন অধীর চৌধুরী।