সংস্থার কাছে BSNL এর বকেয়া ৩হাজার কোটি। দেরিতে হুঁশ ফিরলো

0
6

রাষ্ট্রায়ত্ত সংস্থা BSNL এ বেতন এখন অনিয়মিত। কর্মীদের মধ্যে ছাঁটাইয়ের অাশঙ্কা। কারণ এক সময়ের এক চেটিয়া এই সংস্থাটিকে ক্রমশ রুগ্ন করে দেওয়া হয়েছে। এখন জানা যাচ্ছে টাকার অভাবে কর্মীদের বেতন দেওয়া না গেলেও বিভিন্ন সংস্থার ঘরে বিএসএনএলের বকেয়া পড়ে অাছে ৩ হাজার কোটি টাকা। এখন কর্তৃপক্ষের হুঁশ হয়েছে ওই বকেয়া উদ্ধারের। তাও পুরোটা উদ্ধার করতে পারবে বলে তাদের অাশা নয়। নগদের সমস্যা মেটাতে এবার নিজেদের বাড়ি একটা অংশ লিজে দে‍ওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে বিএসএনএল। এইভাবে এবছর ১০০০ কোটি টাকা তোলার লক্ষমাত্র স্থির করেছে বিএসএনএল।

BSNL ও MTNL এর সঙ্কটের মধ্যেই কর্মী ছাঁটাইয়ের অাশঙ্কার মেঘ কাটছে না। ছাঁটাইয়ের সংখ্যাটা ঠিক কত তা নিয়ে মিডিয়া রিপোর্টে ভিন্নতা থাকলেও ওই সংস্থা দুটোতে কর্মী ছাঁটাই যে হবে তা স্পষ্ট। একটি রিপোর্ট অনুযায়ী অবসরের বয়স ৬০ থেকে কমিয়ে ৫৮ করে ও ভিঅারএস চালু করে প্রায় ৫৪ হাজার কর্মী ছাঁটাইয়ের কথা ভাবছে BSNL । অন্যদিকে টাইমস অফ ইন্ডিয়ার রিপোর্ট অনুযায়ী অাগামী ৫ বছরে ৭৫ হাজার কর্মীকে ছাঁটায়ের পরিকল্পনা করেছে BSNL। অন্যদিকে অারেকটি সরকারি টেলিকম সংস্থা MTNL এ অাগামী ৫ বছরে ১৬ হাজার কর্মী অবসর নেবেন, ভিঅারএসের মাধ্যমে সেই সংখ্যাকেও অারো বাড়াতে চাইছে সরকার।

BSNLঅার্থিক অবস্থা এতটাই বেহাল কর্মীদের বেতন সময়মত হচ্ছে না। ক্ষতির বোঝা বাড়ছে বছরের পর বছর। বাড়ছে ঋণের দায়ও। অথচ করপোরেট সংস্থার ঘরে বকেয়া পড়ে রয়েছে ৩ হাজার কোটি টাকা। গৃহস্থের ঘরে এক মাসের বিল বকেয়া হলে লাইন কেটে দেওয়া হয়। হুঁশ ছিল না কর্তৃপক্ষের। অার এর দায় নিতে হচ্ছে গ্রাহক ও কর্মীদের। প্রকৃত দোষীদের ছাঁটাই না করে শুধু কর্মীদের ছাঁটাই করে দেয় এড়াতে পারে কি সরকার বা BSNL। জিও সহ অন্যান্য বেসরকারি টেলিকম সংস্থাগুলোকে সুবিধা পাইয়ে দেওয়ার জন্য বছরের পর বছর ধরে রাষ্ট্রায়ত্ত BSNL ও MTNLকে কি ইচ্ছে করে রুগ্ন করে দেয়নি কেন্দ্রের নানা রঙের সরকার? প্রশ্নগুলো বিএসএনএল কর্মীদেরও তোল উচিত ছিল অনেক অাগেই।