হেটক্রাইম? অামেরিকায় ২টি পৃথক বন্দুকবাজের হানায় নিহত অন্তত ২৯

0
7

ফের অামেরিকায় বন্দুকবাজের হামলা । নিহত ২০। শনিবার টেক্সাসের এল পাসো এ ওয়ালমার্টের দোকানে এক বন্দুকবাজ এলোপাথাড়ি গুলি চালাতে শুরু করলে অন্তত ২০ জন নিহত হন। জখম হয়েছেন২৬জন। পুলিসের তরফে জানান হয়েছে সম্ভবত বিদ্বেষের জেরেই এই হত্যাকাণ্ড ঘটিয়েছে এক শেতাঙ্গ। এই নারকীয় হত্যাকাণ্ডের পর ২১ বছরের এক শেতাঙ্গ যুবক পুলিসের কাছে অাত্মসমর্পণ করেছে। মেক্সিকোর সীমান্ত অঞ্চল এল পাসো। হত্যাকাণ্ডের নিন্দা করেছেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প ও বিরোধী ডেমোক্র্যাটিক পার্টির নেতারাও।

ওয়ালমার্টের গুলি চালানোর ঘটনার ২৪ ঘন্টার মধ্যেই শনিবার -রবিবার রাতে ওহিয়োর একটি নাইটক্লাবে এক বন্দুকবাজের হানায নিহত ৯। জখম বহু। পাল্টা গুলিতে নিহত বন্দুকবাজও।

অামেরিকায় বন্দুকবাজের হামলায় নিহত হওয়ার ঘটনা নতুন নয়।রুটিনে পরিণত হয়েছে।এর পিছনে সে দেশের অার্থ সামাজিক কারনের পাশাপাশি বন্দুকের সংস্কৃতিকেও দায়ী করেছেন অনেকে। তাছাড়া সম্প্রতি অামেরিকায় উগ্র জাতীয়তাবাদ যেভাবে মাথা চাড়া দিয়েছে তাও হেটক্রাইমের মত ঘটনাকে উস্কে দিচ্ছে। মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প মেক্সিকো সীমান্তে দেওয়াল তুলে বেঅাইনি অনুপ্রবেশকারী ও ড্রাগ পাচারকে রোখার কথা বলছেন। মানবাধিকার কর্মীদের একাংশ মনে করেন অাসলে এটা দেশে উগ্র জাতীয়তাবাদকেই প্রশ্রয় দেওয়ার কৌশল। অাসলে অামেরিকায় যা ঘটছে তাকে বিচ্ছিন্ন ঘটনা বলে ভাবলে ভুল হবে। কোথাও না কোথাও ভ্রান্ত রাষ্ট্রনীতি এর পিছনে দায়ী। অনেকে মনে করেন ট্রাম্পের নানা বিতর্কিত মন্তব্যও হয়তো হেটক্রাইমের জন্য দায়ী। হয়তো তাই। কিন্তু ডোনাল্ড ট্রাম্প যা করেন বা যা বলেন তা শুধু নিজের ইচ্ছেতে একথা ভাবার কোন কারনে নেই।

ছবি theindependent এর সৌজন্যে