৩৭০ ধারা বাতিলের অার্জি ভুলেভরা?শুনানি স্থগিত

0
9

৩৭০ধারা বাতিলের বিরুদ্ধে সুপ্রিম কোর্টে দাখিল করা এক অাইনজীবীর অার্জিতে ভুল থাকায় শুনানি স্থগিত করে দিলেন প্রধান বিচারপতি রঞ্জন গগৈর বেঞ্চ। । এম এল শর্মা নামে ওই অাইনজীবীর দাখিল করা অার্জির প্রেক্ষিত প্রধান বিচারপতি জানিয়েছেন অাপনার অার্জিটা কি তাই তো বোঝা যাচ্ছে না। এর অাগে ওই অাইনজীবীর অার্জির জরুরি শুনানিতে রাজি হয়নি সুপ্রিম কোর্ট। প্রশ্ন উঠছে ৩৭০ ধারা বাতিলের মত এত গুরুতর বিষয় দাখিল করা অাবেদনে ভুল! এর পিছনে সময় নেওয়ার অন্য খেলা নেই তো? অন্য পৃথক কাশ্মীর টাইমসের তরফে অার্জিতে বলা হয় অবিলম্বে ফোন ও ইন্টারনেট চালু না করলে তাদের পক্ষে কাজ করা সম্ভব হচ্ছে না। এই প্রেক্ষিতে সর্বোচ্চ অাদালত জানিয়েছে মিডিয়া রিপোর্ট অনুযায়ী অতি দ্রুত ফোন ও ইন্টারনেট চালু হবে। একটু অপেক্ষা করতে বলা হয়েছে।

৫ অগস্ট রাজ্যসভায় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ ঘোষণা করেন ৩৭০ ধারা বাতিলের বিষয়টি। সঙ্গে সঙ্গে রাষ্ট্রপতির অাদেশের বিষয়টি সামনে অাসে। সংবিধানের নিয়ম অনুসারে ৩৭০ ধারা বাতিল ও ভারতের সব অাইন জম্মু কাশ্মীরে লাগু করতে রাষ্ট্রপতির অাদেশের সঙ্গে সেই রাজ্যের বিধানসভার অনুমোদন প্রয়োজন। সরকারের তরফে যুক্তি যেহেতু সেই রাজ্যে এখন বিধানসভা ভেঙে দেওয়া হয়েছে। তাই সংসদ অনুমোদন করলেই তা সাংবিধানিকভাবে বৈধ। সোমবারই ধ্বনিভোটে রাজ্যসভা ৩৭০ধারা রদের বিল পাশ হয়ে যায়। মঙ্গলবার তা পাশ করে লোকসভা।

রাজনৈতিক বিশ্লেষক ও জম্মু কাশ্মীরের রাজনীতির সঙ্গে ওয়াকিবহাল ব্যক্তিদের মতে কাশ্মীরের জনগণের সঙ্গে অালাপ অালোচনা ছাড়া যেভাবে জম্মু কাশ্মীরকে দ্বিখণ্ডিত করা হল ও ৩৭০ ধারা খারিজ করা হল তা অাসলে গণতন্ত্রকে হত্যা করা হল। কাশ্মীরি জনগণের সঙ্গে ভারতের মূল স্রোতের বিচ্ছিন্নতাকে অারো বাড়াতে সাহায্য করবে। লাভ হবে যারা কাশ্মীর সমস্যাকে জিইয়ে রেখে রাজনীতি করতে চান তাদের। ভুলে গেলে চলবে না জম্মু কাশ্মীরে প্রায় ৭-৮ লক্ষ ভারতীয় নিরাপত্তা রক্ষী মোতায়েন রয়েছে। ইতিহাস বলছে বন্দুক দিয়ে মানুষকে ভয় পাওনা যায় ,মূলস্রোতে অানা যায় না।