সবুজের অভিযানে পদযাত্রা করেন আবার গাছ কাটার অনুমতি পেতে সুপ্রিমকোর্টেও যান মমতা

বৃহস্পতিবার রাজ্যে সবুজের অভিযানে পদ যাত্রা করছেন মুখ্যমন্ত্রী।সরকারি এই উদ্যোগ রাজ্য জুড়ে মানুষের মধ্যে গাছ লাগাবার প্রবণতা বাড়াতে।বৃহস্পতিবার যখন মুখ্যমন্ত্রী তাঁর কর্মী ও সমর্থদের নিয়ে রবীন্দ্রসদন থেকে রবীন্দ্রসরোবর পর্যন্ত দীর্ঘ পদযাত্রা করছেন ঠিক তার কিছু সময় আগেই রাজ্য সরকারের পক্ষের আইনজীবীরা সুপ্রিমকোর্টে একটি মামলায় যশোহর রোডের দীর্ঘ দিনের পুরোন গাছ কেটে ফেলার অনুমতি চাইতে হাজির হয়েছিলেন।প্রশঙ্গত যশোহর রোড জুড়ে গাছ কাটার সরকারি উদ্যোগের বিরুদ্ধে সাধারণ নাগরিক সমাজই রুখে দাঁড়ায়।এ নিয়ে প্রথমে কলকাতা হাইকোর্টে মামলা হয়,এখন মামলা চলছে সুপ্রিমকোর্টে।বৃহস্পতিবার সেই মামলারই শুনানি হওয়ার কথা ছিল।রাজ্য সরকার যশোহর রোডের গাছ কেটে ‘উন্নয়নে’র গতিকে তরান্বিত করতে চায় বলে আগেই কোর্টকে জানিয়েছে।রজ্য সরকারের পক্ষের আইনজীবীর বক্তব্য যশোহর রোডের গাছের জন্য রাস্তা সম্প্রসারণ সহ নানাবিধ উন্নয়নের কাজ আটকে যাচ্ছে।অন্যদিকে পরিবেশ সচেতন নাগরিক সমাজের বক্তব্য এভাবে গাছ কেটে পরিবেশ দুষণকে আহ্বান করে আনা হচ্ছে,তাই গাছ কাটার বিষয়ে সরকারকে সতর্ক হতেই হবে।বৃহস্পতিবার সুপ্রিমকোর্টে মামলাটির শুনানি হয়নি,তার কারণ এই মামলার বিচারপতি জানিয়ে দেন যেহেতু তিনি একসময় নাগরিক আন্দোলনকে প্রকাশ্যে সমর্থন করেছেন তাই এই মামলার একপক্ষ নাগিরিক আন্দোলনকারী হওয়ায় নৈতিকতার কারণে তিনি এই মামলার বিচার করতে অপারক,মামলাটি তিনি অন্য বিচারপতির ঘরে পাঠাবার ব্যবস্থা করেন।এই কারণেই বৃহস্পতিবার এই মামলার শুনানি হতে পারেনি।তবে এ রাজ্যের সরকারের পরস্পর দুটি বিপরীত সত্তা বৃহস্পতিবার বেড়িয়ে এল,একদিকে মুখ্যমন্ত্রী পদযাত্রা করছেন সবুজের অভিযানের স্লোগান দিয়ে,মানুষকে গাছ লাগানোর বিষয়ে উত্সাহ দিতে অন্যদিকে তাঁরই সরকার আইনজীবী পাঠাচ্ছে সুপ্রিমকোর্টে গাছ কাটার অনুমতি আদায় করে আনতে।একই সরকারের অঙ্গে কত রূপ,দেখে চোখ ঝলসে যায় বইকী!