মধ্যপ্রদেশে লকঅাপে অাদিবাসীদের খাওয়ানো হল প্রস্রাব,রাজস্থানে গণধর্ষণের শিকার এক দলিত তরুণী

কংগ্রেস শাসিত মধ্যপ্রদেশে অাদিবাসীদের উপর পুলিসি অত্যাচার। অালিপারজপুর জেলার নানপুর থানা লকঅাপে বন্দি ৫ অাদিবাসীকে মারধরের পর জল চাইলে তাদের প্রস্রাব খাওয়ানাের অভিযোগ উঠল পুলিসের বিরুদ্ধে। মন্দের ভাল পুলিসের তরফে ওই থানার ওসি সহ ৪ পুলিস কর্মীকে সাসপেন্ড করেছে। অালিরাজপুর জেলার পুলিস সুপার ইন্ডিয়ান এক্সপ্রেসকে জানিয়েছেন প্রাথমিক তদন্তে পুলিসের বিরুদ্ধে ওঠা অভিযোগের সত্যতা রয়েছে বলে মনে করা হচ্ছে। দুপক্ষের মধ্যে বচশার সময় পুলিস হস্তক্ষেপ করলে পুলিস কর্মীকে পেটানোর অভিযোগে ৫ অাদিবাসী যুবককে থানায় তুলে অানে পুলিস।

অন্যদিকে অারেক কংগ্রেস শাসিত রাজস্থানে এক দলিত গণধর্ষণের শিকার এক গর্ভবতী দলিত তরুণী।অত্যাচারের জেরে নষ্ট হয়েগেছে ৮ সপ্তাহের ভ্রুণটিও। অার এই সব সহ্য করতে না পেরে অাত্মহত্যা করলেন তাঁর প্রেমিক। বছর ১৯ এর ওই তরুণীকে ১৩ -১৪ জুলাই গণধর্ষণ করা হয়। সোমবার ৫ অভিযুক্তকে গ্রেফতার করে অাদালতে তোলে পুলিস।

দেশের কোথাও মহিলা, অাদিবাসী, সংখ্যালঘুরা অাজ সুরক্ষিত নয়। এই দুটি ঘটনায় পুলিস দোষীদের গ্রেফতার করেছে ঠিকই। তবে তদন্তের পর কী চার্জশিট দেবে তার উপর নির্ভর করবে অাদালতের বিচার।সেখানে অাশা কমই। কয়েকদিন অাগে তামিলনাড়ুতে এক দলিত সানগ্লাস পরায় পুলিস তাঁকে গ্রেফতার করে। বিয়ের সময় ঘোড়ায় চড়তে দলিত যুবককে নিষেধ করা থেকে শুরু করে নানা ধরনের অত্যচার দলিতদের উপর প্রতিদিন হয়ে চলেছে দেশের নানা প্রান্তে। শুধু যে অার্থিকভাবে পিছিয়ে থাকা অংশের মানুষদের উপর এই অত্যাচার হচ্ছে তা নয়। বড় বড় শহরেও জাতের নামে বজ্জাতি চলছে। খাস কলকাতা শহরের একাধিক শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে জাত তুলে মানসিক অত্যাচারের খবর সামনে এসেছে সম্প্রতি। তবে তা চলছে বছরের পর বছর ধরে।