কাশ্মীর নিয়ে বারবার ট্রাম্পের সমঝোতার ইচ্ছেপ্রকাশ কি এমনি এমনি

0
9
U.S. President Donald Trump speaks during the Inaugural Law Enforcement Officers and First Responders Reception in the Blue Room of the White House in Washington, U.S., January 22, 2017. REUTERS/Joshua Roberts

প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির সঙ্গে টেলিফোনে কথা বলার ২৪ ঘন্টার মধ্যেই কাশ্মীর সমস্যা নিয়ে ফের সমঝোতার ইচ্ছে প্রকাশ করলেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। ট্রাম্প মনে করেন কাশ্মীর খুব জটিল জায়গায়। তার মতে ধর্ম ভারত পাকিস্তান্তের মধ্যে সমস্যার অন্যতম কারণ। অাগামী ৭ অগস্ট ফ্রান্সে ভারতের প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে টাঁর দেখা হলে এ বিষয় কথা বলবেন বলে জানিয়েছেন ট্রাম্প।

এর অাগেও কাশ্মীর সমস্যার সমাধানে ট্রাম্পের ইচ্ছেপ্রকাশ নিয়ে বিতর্ক তৈরি হয়েছিল ট্রাম্পের এই বয়ানের পর বিদেশমন্ত্রী জয়শঙ্কর স্পষ্ট করে জানিয়েছিলেন ভারত পাকিস্তানের বিষয়টি দ্বিপাক্ষিক। এই নিয়ে তৃতীয়পক্ষের কোন সালিশি করার কোন প্রশ্নই ওঠে না। মোদি এই বিষয় ট্রাম্পকে সমঝোতা করার জন্য কখনও বলেনওনি। তবে বিরোধীরা এনিয়ে প্রধানমন্ত্রীর বয়ান দাবি করেছিল। তবে ৩৭০ ধারা বাতিলের পর এই বিষয়টি পিছনের সারিতে চলে যায়। তবে অাবারো ট্রাম্পকে মোদির ফোন, অাবারো ট্রাম্পের সমঝোতার ইচ্ছে প্রকাশ।

কাশ্মীর নিয়ে তাঁকে মধ্যস্থতা করতে অনুরোধ করেছিলেন ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি, মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের এই বেফাঁস মন্তব্য ঘিরে উত্তাল হয়ে উঠে নয়া দিল্লির রাজনীতি। তত্ক্ষণাত ট্রাম্পের দাবি খারিজ করে ভারত। ভারতের তরফে দাবি করা হয় মার্কিন প্রেসিডেন্টের কাছে এরকম কোন অনুরোধ নরেন্দ্র মোদি করেননি। ভারত পাকিস্তানের মধ্যে দ্বিপাক্ষিক সম্পর্কে তৃতীয় পক্ষের মধ্যস্থতার কোন অবকাশ নেই বলে জানিয়েছে ভারত। কিছুদিন অাগে ওয়াশিংটনে পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খানকে স্বাগত জানাতে গিয়ে কাশ্মীর নিয়ে মধ্যস্থার কথা বলেন প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প। ইমরান খান অবশ্য কাশ্মীর নিয়ে ট্রাম্পের মধ্যস্থতার ইচ্ছেপ্রকাশকে স্বাগত জানিয়েছেন। অান্তর্জাতিক বিষয়ে পর্যবেক্ষকদের মতে কাশ্মীর ইস্যুতে ট্রাম্প মধ্যস্থতার ইচ্ছেপ্রকাশকে কোন অালটপকা মন্তব্য বলে মনে করা ভুল হবে। এর পিছনে রয়েছে দক্ষিণ পূর্ব এশিয়ায় মার্কিন অাধিপত্য বিস্তারের কৌশল। ফের কাশ্মীর ইস্যুতে ট্রাম্পের সমঝোতার ইচ্ছেপ্রকাশ সেই তত্ত্বকেই জোরাল করছে।